বাজারে নতুন দেশি প্রজাতির সবুজ মাল্টা চাহিদা মেটাচ্ছে ক্রেতাদের

আপডেট: আগস্ট ২৫, ২০১৯, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীতে এসেছে দেশি প্রজাতির সবুজ মাল্টা। বিদেশি মাল্টার চেয়ে স্বাদে ও গুনে ভালো । আর বিদেশি মাল্টার চেয়ে দাম অনেকটা কম হওয়ায় বিক্রি বেড়েছে। খেতে হালকা মিষ্টি হওয়ায় ক্রেতারা কিনছে প্রিয়জনদের জন্য। বেশ কয়েক সপ্তাহ থেকে দেশি জাতের এই মাল্টা বাজারে উঠেছে। গতকাল শুক্রবার নগরীর সাহেববাজারে গিয়ে দেখা যায় ভ্যানে ফেরি করে বিক্রি করছে বিক্রেতারা। বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতিকেজি মাল্টা বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়। প্রতিদিন দেড় থেকে দুইমণ মাল্টা বিক্রি করছে বিক্রেতারা।
নগরীর সাহেববাজরের বিক্রেতা মিন্টু বলেন, ঈদের আগে থেকে বিক্রি করছি। শুরু থেকেই ভালো বিক্রি হচ্ছে। এগুলো বারি-১ জাতের দেশি মাল্টা। দুই রকম মাল্টা আছে, তার সবগুলোই কাঁচা। কিন্তু ভেতরে অনেক মিষ্টি। আমি প্রতিদিন দুইমণ মাল্টা বিক্রি করছি’।
নগরীর মণি চত্বরে মাল্টা বিক্রি করছে ডাবলু সরকার- তিনি বলেন,‘আমি প্রতিদিন তানোর গোদাগাড়ী থেকে মাল্টা পাইকারি কিনে নিয়ে আসি। প্রতিদিন প্রায় দেড় থেকে দুইমণ মাল্টা বিক্রি করছি’।
তিনি আরো বালেন,‘রাজশাহীর পুঠিয়া, বাঘা, বাগমারা, তানোর, গোদাগাড়ী এলাকায় এই মাল্টার চাষ হচ্ছে। আমরা থানাগুলোর বাগান থেকে পাইকারি কিনে খুচরা বিক্রি করছি’।
মাল্টা কিনছেন ক্রেতা সাদিয়া ইয়াসমিন- তিনি বলেন,‘ এই মাল্টাটা বাজারের অন্য মাল্টার চেয়ে ভালো। দেখতে কাঁচা হলেও এর স্বাদ মিষ্টি। তবে অনেক মাল্টা অপরিপক্ত না হওয়ায় একটু সমস্যা আছে। সকল মাল্টা পরিপুক্ত হলে ভালো হতো। বাজারে যেখানে অন্য মাল্টা বিক্রি হয় ২০০ থেকে ৩০০ টাকায়- এই মাল্টা বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়, এটা আমাদের জন্য ভালো।’
ক্রেতা রোবায়েত ফেরদৌস ছাব্বির বলেন, প্রথম যেদিন মাল্টা নিয়ে ছিলাম টেস্ট করেই দেখি মিষ্টি আছে। এখন বাসার জন্য প্রায়ই নিচ্ছি। দাম মোটামুটি থাকায় এর চাহিদাও অনেক বেশি’।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ