বিনিয়োগ টানতে মমতা হন্যে, কিন্তু কমছে

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৭, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

দীপঙ্কর দাসগুপ্ত


এবারের মতোই লগ্নি টানার নাম করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ২৬ মাস আগে লন্ডন গিয়েছিলেন। এখানে সেখানে ঘুরে বেড়িয়েছিলেন, শিল্পপতিদের জন্য পার্টিও দিয়েছিলেন। রানির বাড়ি বেড়াতে গিয়ে রানির নাতনির জন্য জামাকাপড় উপহার দিয়েছিলেন। লন্ডনের রাস্তাঘাটের অবস্থা নিয়ে তির্যক মন্তব্যও করেছিলেন। তৃণমূল কংগ্রেস এবং সরকারের তরফে দাবি করা হয়েছিলো, সুদিন এলো বলে।
কিন্তু সাম্প্রতিক হিসাবে দেখা যাচ্ছে, লগ্নি আসা দূরে থাক, এ রাজ্যে বিনিয়োগ প্রস্তাব কমেছে প্রায় একশো শতাংশ। শুধু বিদেশি বিনিয়োগই নয়, গত ২৬ মাসে এ রাজ্যে সাধারণ বিনিয়োগ প্রস্তাবও কমেছে। এই মাসগুলিতে রাজ্যে বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে মাত্র ৯, ১৬৭ কোটি টাকা। প্রস্তাব মানেই কিন্তু শিল্প নয়, তবু লোকের আগ্রহ দেখে বোঝা যায়, শিল্পপতিরা প্রকৃতই এ রাজ্যে আসতে কতোটা আগ্রহী। কর্মসংস্থানের সুযোগেরও এর সাহায্যে পরিমাপ করা যায়। সমস্ত হিসাবে দেখা যাচ্ছে, দুর্দশা প্রকট। দেশের মোট বিনিয়োগ প্রস্তাবে পশ্চিমবঙ্গের অংশগ্রহণ ১ শতাংশেরও কম। এমন খারাপ ছবি আগে কবে দেখা গিয়েছে শিল্প দপ্তরের অফিসাররা তা খোলসা করে বলতে পারছেন না। চলতি আর্থিক বছরে রাজ্যে এখনো ৩,২০১ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে। তা দেশের মোট প্রস্তাবের ০.৯৯ শতাংশ। রাজ্যের অবস্থান ১১ নম্বরে।
২০১৪-র আগস্টে মুখ্যমন্ত্রী সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন ‘বিনিয়োগ’ খুঁজতে। তিনি লন্ডন গিয়েছিলেন ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই। ফিরে এসেছিলেন ৩০ জুলাই। আবার ২০১৬-র সেপ্টেম্বরে মুখ্যমন্ত্রী জার্মানি গিয়েছিলেন বিনিয়োগ টানার লক্ষ্যে। সেবারও তিনি পরিচিত মুখগুলিকেই লন্ডনে নিয়ে গিয়ে তাঁদের শিল্পপতি সাজিয়ে বৈঠক করেন। দু-একজন বৃটিশ বণিকসভার লোক এসেছিলেন বটে, কিন্তু সে সব নিছক সৌজন্যের খাতিরে। আর এবারও এখনো পর্যন্ত পাওয়া খবরে জানা গেছে, তিনি সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পায়ে হেঁটে লন্ডন ঘুরছেন। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোনো বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক করেননি। মুখ্যমন্ত্রীর পাশে দাঁড়াতে উড়ে গিয়েছেন অর্থ তথা শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্রও। ইউকে চেম্বার অফ কমার্সের সঙ্গেও নাকি তিনি মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠক করাবেন। রাজ্যের শিল্পোন্নয়ন নিগমের এক অফিসার জানিয়েছেন, কয়েকবার লন্ডন সফরের পরও এ দেশে ব্রিটিশ বিনিয়োগ বাড়েনি- সেই সাত শতাংশেই থমকে রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে তা আরো কম। আগামী ১৬ ও ১৭ জানুয়ারি কলকাতায় আরো একটি শিল্প সম্মেলন করা হবে। সেই সম্মেলনে মমতা বেশ কয়েকজন বৃটিশ শিল্পপতিকে আহ্বান জানাতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। শিল্পোন্নয়ন নিগম সংগৃহিত তথ্যে জানা যাচ্ছে, দেশের পূর্বাঞ্চলে ২০১৫-১৬ সালে বিদেশি বিনিয়োগের প্রস্তাব ছিলো ৬,২২০ কোটি টাকা। এই প্রস্তাব গুলির অধিকাংশেরই কাজ শুরু হয়নি। ২০১৬-১৭ সালে বিনিয়োগ প্রস্তাব নেমে আসে ৩৩২ কোটি টাকায়। যদিও সারা দেশে এই সময় দেশের অন্যত্র বিদেশি বিনিয়োগের পরিমাণ সামান্য হলেও বেড়েছে। ২ লক্ষ ৬২ হাজার কোটি টাকা থেকে এই প্রস্তাব বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লক্ষ ৯২ হাজার কোটি টাকায়।