বিরতিহীন ট্রেনের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল প্রশংসায় ভাসছেন মেয়র লিটন

আপডেট: এপ্রিল ১০, ২০১৯, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


ফেইসবুকে ভাইরাল হওয়া বিরতিহীন ট্রেনের ছবি-সোনার দেশ

আগামী ১৪ এপ্রিল পহেলা বৈশাখ থেকে ঢাকা-রাজশাহী রেলপথে ট্রেনের নতুন বিরতিহীন সার্ভিস চালু করা হচ্ছে। কিন্তু এর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এখন বিরতিহীন ট্রেনের ছবিগুলো ভাইরাল। রাজশাহীর অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ওয়ালে ওয়ালে এখন শুধুই বিরতিহীন ট্রেনের ছবি। এদিকে রাজশাহী অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবিটি পূরণ করায় প্রশাংসায় ভাসছেন রাজশাহী সিটি কপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। রাজশাহী-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন চালুর ঘোষণার পর থেকে ফেসবুক ব্যবহারকারী তাঁদের নিজ ওয়ালে গিয়ে নগরপিতাকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। জানা গেছে, ঢাকা-রাজশাহী বিরতিহীন ট্রেন চলাচলের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল রাজশাহীসহ এই অঞ্চলের মানুষের। গত নির্বাচনে মেয়র তার অন্যতম নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিও ছিল এটি। মেয়র নির্বাচিত হলে ঢাকা-রাজশাহী বিরতিহীন ট্রেন চালুর চেষ্টা করবেন বলেও নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি রাজশাহীর মানুষকে কথা দিয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত ট্রেনটি চালু হচ্ছে জেনে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাজশাহীবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদসহ বিশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন। এর আগে গত রোববার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে রাজধানীতে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এসময় ট্রেনটির প্রস্তাবিত নামসহ আনুষাঙ্গিক বিষয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন তারা। ওই সাক্ষতে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন প্রস্তাবিত নামগুলো প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করে এসময় তার কাছ থেকে মতামত চাওয়া হয়। এছাড়া আনুষাঙ্গীক বিষয়েও আলোচনা হয়। প্রধানমন্ত্রী দুয়েকদিনের মধ্যে এ ব্যাপারে মতামত দিলে ট্রেনটির নাম চুড়ান্ত করা হবে। অন্যদিকে, ট্রেন চালানোর সব প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ করেছেন পশ্চিম রেলওয়ে। অন্যদিকে ঢাকা-রাজশাহী বিরতিহীন ট্রেন চালু অনুমোদন ও সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়কে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়ায় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের উল্লেখ্য রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে বিরতিহীন ট্রেন চলাচলে সময় বাঁচবে দুই থেকে আড়াইঘন্টা। মালয়েশিয়া থেকে আনা নতুন কোচ ট্রেনটিতে সংযোজন করা হয়েছে। ট্রেনটিতে অন্যান্য আন্তঃনগর ট্রেনের মতোই বিশেষ সব যাত্রীসেবা থাকবে। রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে সাধারণভাবে আন্তঃনগর ট্রেনগুলি ৬ থেকে সাড়ে ৬ ঘন্টার সময়ে চলাচল করলেও এই ট্রেনটি গন্তব্যে পৌঁছাবে মাত্র ৪ থেকে সাড়ে ৪ ঘন্টা সময় নেবে। সপ্তাহের সাতদিনের মধ্যে একদিন যাত্রা বিরতি রাখবে এই ট্রেনটি। এই ট্রেনে মোট বগিসংখ্যা হতে পারে ১২। এসব বগিতে আসনসংখ্যা হবে ৯৩২।