‘বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়ে দেশে ফেরার স্বপ্ন দেখি’

আপডেট: মে ২২, ২০১৯, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অভিষেকের পর প্রায় সাড়ে তিন বছর কেটে গেলেও এখনও জাতীয় দলে জায়গা পাকা হয়নি। মোসাদ্দেক হোসেনের ধারাবাহিকতার অভাবই সেজন্য দায়ী। অনেক দিন আসা-যাওয়ার মধ্যে থাকা এই অলরাউন্ডার অবশেষে জ্বলে উঠলেন এমন একটা ম্যাচে, যে ম্যাচ আজ ইতিহাসের অংশ। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে মোসাদ্দেকের অপরাজিত ৫২ রানের অসাধারণ ইনিংস বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে লেখা থাকবে স্বর্ণাক্ষরে। রাতারাতি ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রে চলে এসে তিনি নিজেও অভিভূত। বিস্ময়ের ঘোর নিয়েই কথা বললেন বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে। কথপোকথনের বড় অংশ জুড়ে ছিল আসন্ন বিশ্বকাপ।
বাংলা ট্রিবিউন: দু মাস আগেও বিশ্বকাপ খেলার কথা কল্পনা করেছিলেন?
মোসাদ্দেক: বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন কিন্তু দেখেছিলাম। স্বপ্ন ছাড়া তো মানুষ বাঁচে না। তাছাড়া আমার দলে থাকা নিয়ে চারদিকে আলোচনাও হচ্ছিল। যদিও দল ঘোষণার আগে পুরোপুরি নিশ্চিত হতে পারিনি। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলেছিলাম। এবার বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছি। এটা আমার ক্যারিয়ারের অনেক বড় অর্জন। বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা মঞ্চে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন কবে থেকে দেখা শুরু করেন?
মোসাদ্দেক: আসলে যখন থেকে ক্রিকেট খেলা শুরু করি, তখন থেকেই বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন দেখতাম। বিশ্বকাপে খেলবো, বাংলাদেশকে ভালো রেজাল্ট এনে দেবো এমন স্বপ্ন অনেক দিন ধরেই দেখছি। এবার ১৫ জনের চূড়ান্ত দলে আছি। মাঠে নামার সুযোগ পেলে ভালো পারফর্ম করার চেষ্টা করবো।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপের কোন স্মৃতি আজও আপ্লুত করে আপনাকে?
মোসাদ্দেক: ২০০৭ বিশ্বকাপের কথা আমার স্পষ্ট মনে আছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আশরাফুল ভাইয়ের ব্যাটিং (মোহাম্মদ আশরাফুলের ৮৭ রানের অনবদ্য ইনিংসে বাংলাদেশ ৬৭ রানে জিতেছিল) এখনও চোখ বন্ধ করলে দেখতে পাই। বাংলাদেশ জেতার পর আমরা ময়মনসিংহে আনন্দ মিছিল করেছিলাম।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপের মতো টুর্নামেন্টকে কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন আপনি?
মোসাদ্দেক: বিশ্বকাপ এমন একটা মঞ্চ, যেখানে প্রত্যেক খেলোয়াড় নিজেকে প্রমাণ করতে মুখিয়ে থাকে। এই টুর্নামেন্টে ভালো করলে সবার নজরে চলে আসা যায় রাতারাতি। তাই ক্রিকেটারদের জন্য বিশ্বকাপ নিজেকে প্রমাণ করার একটা দারুণ মঞ্চ।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপ নিয়ে আপনার স্বপ্ন কী?
মোসাদ্দেক: ব্যাটিং-বোলিং যে ভূমিকায় হোক, দলের প্রত্যাশা পূরণ করতে চাই। আমি বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়ে দেশে ফেরার স্বপ্ন দেখি। স্বপ্ন পূরণের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করবো।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপে কোন দলের বিপক্ষে খেলার সম্ভাবনায় আপনি সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চিত?
মোসাদ্দেক: বিশ্বকাপে প্রতিটা ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। ছোটবেলায় বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ আলাদা রোমাঞ্চ জাগাতো আমার মনে। আর এখন খেলোয়াড় হিসেবেও ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে বেশি উত্তেজিত থাকি।
বাংলা ট্রিবিউন: দুই বছর আগে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আপনার বোলিং (৩/১৩) দলের জয়ে অবদান রেখেছিল। কার্ডিফের ওই পারফরম্যান্স এবার নিশ্চয়ই অনুপ্রাণিত করবে আপনাকে?
মোসাদ্দেক: নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কার্ডিফের ম্যাচটির অনুপ্রেরণা নিয়েই বিশ্বকাপে মাঠে নামবো। আশা করি, সবার প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবো।
বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপে ব্যাট বা বল হাতে কাউকে টার্গেট করেছেন?
মোসাদ্দেক: পরিকল্পনা করে তো রান করা বা উইকেট পাওয়া যায় না। তবে ভারত, অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রান পেলে খুব ভালো লাগবে। আর কোহলি-স্মিথ-ওয়ার্নারের উইকেট নিতে পারলে আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে।
বাংলা ট্রিবিউন: আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশ প্রথম শিরোপা জিতলো। ফাইনালে জয়ের নায়ক আপনি। ভাবতে কেমন লাগছে?
মোসাদ্দেক: আমার ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল প্রথম কোনও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতেছে। এর চেয়ে ভালো আর কী হতে পারে! আমি খুব খুশি। বিশ্বকাপের আগে ভালো প্রস্তুতির দরকার ছিল। এই টুর্নামেন্টে খেলে আমাদের প্রস্তুতি ভালো হয়েছে।
বাংলা ট্রিবিউন: ফাইনালের ইনিংসটার পর ব্যাটসম্যান হিসেবে আপনি কতটা আত্মবিশ্বাসী?
মোসাদ্দেক: ব্যাটসম্যান হিসেবে আমার দায়িত্ব ম্যাচ শেষ করে আসা। বিশ্বকাপে আমার ব্যাটিংয়ে দল যেন জয় পায় সে চেষ্টাই করবো। আমি একজন ফিনিশার, তাই ম্যাচ ফিনিশ করাই আমার লক্ষ্য।