বিড়াল ইঁদুর খায়

আপডেট: মে ১৮, ২০১৯, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ

হুমায়রা রহমান


একটা বিড়াল ছিল খুব চটপটে। এবং ইঁদুর ধরতে খুবই পছন্দ করতো। বিড়ালটির নাম ছিল মিনি। সে দুধও পছন্দ করতো।
মিনিকে পুষতো সৃতা। সৃতার বোন তিশা। তিশাও বিড়াল পুষতো। তার বিড়ালের নাম ছিল তারা। সৃতার আরেকটা বোন ছিল। তার নাম মনি। সে খরগোশ পুষতো। তার নাম ছিল মেঘলা। একদিন সৃতার বেস্ট ফ্রেন্ড টিউলিপ বেড়াতে এল। সাথে এল তার পোষা ইঁদুর। ইঁদুরটি থাকতো একটা খাঁচায়। খাঁচার গেটটি ছিল খোলা। সৃতার বিড়াল মিনি ইঁদুরটা চুরি করে খেয়ে নিয়েছিলো। টিউলিপের ইঁদুর খাওয়ার কথা সৃতাকে জানালো মনি। তারপর সৃতা রেগে গিয়ে ধমক দিল মিনিকে। শাস্তিও দিল। কী শাস্তি? সৃতা তার বিড়ালকে বলল, আজ থেকে তুই আমার স্কুলের হোমওয়ার্ক করে দিবি। আমি তোকে পাহারা দিবো যেন তুই পালাতে না পারিস।
এই কথাটি সৃতা তার মাকে জানালো। তারপর তার মা বলল, এ-তো সুন্দর উপায়। কখনো ভাবিনি। সন্ধ্যা ছয়টা বাজে। মিনি হোমওয়ার্কগুলো লিখছে। ওদিকে তো মনি, তিশা, সৃতা আর তাদের মা খুবই সুখে আছে।
একদিন মিনি এই কথাগুলো বনের রাজা সিংহকে জানালো। এসব শুনে সিংহ খুব রেগে গেলো। এত ছোট বিড়ালকে কেন শাস্তি দেবে! তখন মিনি বনের রাজা সিংহকে বাসায় নিয়ে গেলো।
মায়ের অবসর সময় ছিলো। তিন বোন খুব খুশিতে ছিলো। তখন সন্ধ্যা সাতটা। সবাই মনে করছে মিনি হোমওয়ার্ক করছে। তারা সবাই লুকোচুরি খেলছে। হঠাৎ তারা দেখলো বনের রাজা ঢুকছে বাসায়। বনের রাজা সিংহ এসে বললো, এতটুকু বিড়ালকে শাস্তি দিয়েছো কেন? তাদের মা বলল, আসুন, আসুন, সিংহ মামা। আমাদের সাথে খেলা করুন।
সিংহ মামা রেগে গেলো। বোন তিনটি ছোট ছিল তাই তাদেরকে শিক্ষা দিতে পারল না। মিনি বললো, বনের রাজা সিংহ তোমাদেরকে শাস্তি দিতে এসেছে। তোমাদের শাস্তি হলো, ফ্রিজের সব মাংস সিংহ খেয়ে নেবে, কারণ তোমরা মাংস বেশি পছন্দ করো।
সৃতা ও তার বোনেরা ভুল বুঝতে পারলো। তারা ভালো হয়ে গেলো। সিংহ বনে চলে গেলো।
তারা মিনিকে ক্ষমা করে দিলো। তাকে আর শাস্তি দিলো না। ( লেখক : হুমায়রা রহমান, তৃতীয় শ্রেণি, মাহমুদুল হাসান স্যাপার প্রাইমারি স্কুল, কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট, নাটোর)