বুদ্ধির জোরে অপহরণকারীদের হাত থেকে রক্ষা পেল নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭, ১:৩০ পূর্বাহ্ণ

নাচোল প্রতিনিধি


চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে অপহরণের এক দিন পর বুদ্ধির জোরে রক্ষা পেল এক শিক্ষার্থী। অপহরণের শিকার আবদুুল কাদির(১৫) নাচোল উপজেলার সোনাইচন্ডী উচ্চবিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সে কসবা ইউনিয়নের তিলহর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে কাদিরের পেটের ব্যথা শুরু হলে বিদ্যালয়ের অদূরে বাজারের একটি ওষুধের দোকান থেকে ওষুধ নিয়ে সেবনের পর বিদ্যালয়ে ফেরার পথে অজ্ঞাত ৫ব্যক্তি তার মুখ চেপে ধরে মাইক্রোবাসে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এবং গতকাল সোমবার সকাল ৬টা ৫৩ মিনিটে অপহরণকারীরা ঢাকার একটি অজ্ঞাত স্থানে আটকিয়ে রেখে কাদিরকে দিয়ে তার ব্যক্তিগত মোবাইল থেকে তার বাবার মোবাইলে কল দিয়ে অপহরণের বিষয়টি জানায় এবং বিকাশের ০১৮৩২৩৯৩৯৮০ নম্বরে মুক্তিপণের টাকা পাঠানোর জন্য বলা হয়।
পরে সকাল ১০টার দিকে মুক্তিপণের টাকার জন্য ঢাকার মতিঝিল থানার কমলাপুর রেলস্টেশন এলাকায় স্বর্ণা টেলিকম বিকাশের দোকানে কাদিরকে রেখে অপহরণকারীরা আশেপাশের নিরাপদ স্থানে অবস্থান নেয়। এ সুযোগে কাদির বিকাশের দোকান মালিককে জানায় তাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল থেকে অপহরণ করা হয়েছে এবং মুক্তিপণের টাকা নেয়ার জন্য তাকে এখানে আনা হয়েছে। এসময় বিকাশের দোকান মালিক গোপনীয়তার মধ্য দিয়ে ঘটনাটি মতিঝিল থানা পুলিশকে জানায়। এদিকে অপহরণকারীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গা ঢাকা দেয়। পরে মতিঝিল থানা পুলিশ অপহরণের শিকার কাদিরকে বিকাশের দোকান থেকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে রেখে নাচোল পুলিশকে অবহিত করে।
এ ব্যাপারে নাচোল থানার ওসি তদন্ত মাহতাব উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অপহরণকারীদেরকে সনাক্ত করা যায় নি তবে ভিকটিমকে আনার জন্য এসআই মাহবুবের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঢাকার মতিঝিল থানায় পাঠানো হয়েছে।