বেড়েই চলেছে পেঁয়াজের দাম || ভারতে আটকে আছে কয়েক কোটি টাকার পুরাতন এলসি

আপডেট: নভেম্বর ১৭, ২০১৯, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি


বেড়েই চলছে পেঁয়াজের দাম। কোনো ভাবেই কমছে না। দেশিয় পেঁয়াজের সঙ্গে মিয়ানমারসহ কয়েকটি দেশ থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ বাজারে আসলেও দাম নিয়ন্ত্রণে এখন পর্যন্তও কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি। নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যটি আমদানিতেও সুখবর পাচ্ছেন না দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা। ফলে ভারতের পেঁয়াজ ছাড়াই দেশের উৎপাদিত পেঁয়াজেই ভোক্তাদের চাহিদা মেটাতে হচ্ছে কম-বেশি। আর এসব কারণে দামের অস্থিরতা নিয়েই পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে তাদের।
হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা জানান, অভ্যন্তরীণ সংকট দেখিয়ে গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত সরকার। এরপর থেকে বাড়তে থাকে ভারতীয় পেঁয়াজের পাশাপাশি দেশিয় পেঁয়াজের দামও। গত শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) সন্ধ্যা পর্যন্ত গত দেড় মাসের ব্যবধানে কেজিতে ১৪০ টাকা করে বেড়েছে। বর্তমানে হিলি স্থলবন্দরসহ আশ পাশের হাট-বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ প্রতি কেজি প্রকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ১৯০-২১০ টাকায়। আর পাতাসহ দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৯০-১১০ টাকার মধ্যে।
হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী মো. মোবারক হোসেন জানান, আমরা অনেক ব্যবসায়ী এখন অলস বসে আছি। প্রতিদিনই ভারতের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। কিন্তু বাংলাদেশে আমদানিতে কোনো সুখবর পাচ্ছি না। বর্তমানে আমরা পেঁয়াজের আমদানি করার চিন্তাটা মাথা থেকে বাদ দিয়েছি। তবে বাজার নিয়ন্ত্রণ এবং আমদানি বাড়াতে আমাদের দেশের সরকারের দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। না হলে বাজারে পেঁয়াজের দাম অনেক বেড়ে যাবে। শুধু মিয়ানমার থেকে যৎ সামান্য পেঁয়াজ আমদানি করে বাজার সামাল দেওয়া কোনো ভাবেই সম্ভব নয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, হিলি স্থলবন্দরের অন্তত ৮-১০ জন ব্যবসায়ী তাদের পুরনো এলসির পেঁয়াজ ভারত থেকে আমদানি করতে না পারায় ভারতে কয়েক কোটি টাকা আটকে গেছে। এতে করে ব্যবসায়ীরা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
হিলি বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী মঈনুল হোসেন জানান, কোনো ভাবেই পেঁয়াজের দামের অস্থিরতা কমছে না। কাস্টমারদের সঙ্গে আমাদের প্রায় সময় দাম নিয়ে বচসা হচ্ছে। বলা যায় পেঁয়াজের বাজার এখন পাগলা হয়ে গেছে। এখনই লাগাম ধরে না টানলে সামনে আরও লক্ষণ আরও খারাপ হতে পারে?
স্থানিয় পর্যায়ে কয়েকটি হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, শুক্রবার সকাল থেকে হিলি বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ প্রতি কেজি ১৮০-২০০ টাকায় বিক্রি হলেও সন্ধ্যায় তা ১৯০ থেকে ২১০ টাকা কেজি পর্যন্ত পৌছে গেছে। মিয়ানমারের পেঁয়াজের দাম একই। আর পাতাসহ দেশিয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৯০-১১০ টাকায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ