বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ধর্মঘট ১৮ দিন অতিবাহিত || ২জুন থেকে অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা

আপডেট: মে ৩১, ২০১৮, ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি


বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে বিক্ষোভরত শ্রমিকদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করছেন নেতৃবৃন্দ-সোনার দেশ

২ জুন থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি ধর্মঘটী শ্রমিক ও এলাকাবাসী অবুরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। ১৮ দিনেও অচলাবস্থা না কাটায় খনির কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে।
দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির শ্রমিক ধর্মঘটের ১৮দিন গতকাল বুধবার অতিবাহিত হয়েছে। দীর্ঘ ধর্মঘটের ধারাবাহিকতায় খনির কর্মকা- অচল করে দিয়েছে সবকিছু। ১৩ দফা দাবি আদায় না হওয়ায় ২ জুন থেকে অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন ও ক্ষতিগ্রস্ত ২০ গ্রামের আন্দোলনরত সমন্বয় কমিটি।
গতকাল বুধবার দুপুর ১২ টায় খনির প্রধান গেটের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান। এসময় খনি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম, সাবেক সভাপতি ওয়াজেদ আলী, ক্ষতিগ্রস্ত ২০ গ্রামের সমন্বয়ক মশিউর রহমান বুলবুল ও মিজানুর রহমানসহ আন্দোলনরত শ্রমিক ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। বক্তারা বলেন, ১ জুনের মধ্যে ন্যায়সঙ্গত ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়িত না হলে পরদিন থেকে অবরোধ কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন তীব্র করা হবে।
১৩মে থেকে বড়পুকুরিয়া খনি শ্রমিক ইউনিয়ন ১৩ দফা দাবিতে শ্রমিক ধর্মঘট কর্মসূচি পালন করে আসছে। শ্রমিক ধর্মঘট চলাকালিন ১৫ মে সকালে কয়েকজন কর্মকর্তা খনির ভিতরে প্রবেশ করাকে কেন্দ্র করে কর্মকর্তাদের সাথে শ্রমিকদের সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় উভায় পক্ষের অন্তত ১৩ জন আহত হয়। এই ঘটনায় খনি কর্তৃপক্ষ পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে। ধর্মঘট পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে খনিজ ও জ্বালানী মন্ত্রনালয়ের পেট্রোবাংলা পরিচালক (প্রশাসন) মোস্তফা কামালকে আহবায়ক করে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি ২৬ মে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে খনি কর্তৃপক্ষ ও ধর্মঘটী শ্রমিকদের বিস্তারিত বক্তব্য গ্রহণ করেছেন।
খনি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম বলেন, চুক্তি অনুযায়ী রেশন, সাপ্তাহিক ছুটি ও বোনাস দেয়ার কথা থাকলেও ৯ মাস থেকে শ্রমিকরা তাদের পাওনা ছুটি রেশন ও বোনাস পাচ্ছেনা। তাই বাধ্য হয়ে আন্দোলনে নেমেছি। খনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান বলেন শ্রমিকদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য পরিকল্পিত ভাবে শ্রমিকদের উপর হামলা করে উল্টা শ্রমিকদের আসামি করে মামলা দায়ের করেছে, এগুলো সবই ষড়যন্ত্র।
বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন বলেন, পেট্রোবাংলা চেয়ারম্যান শ্রমিকদের বারবার কাজে যোগ দেয়ার আহবান জানালেও শ্রমিকরা তাতে সাড়া দেননি।