বড়াইগ্রামে আ’লীগ কার্যালয়ের জন্য জমি কিনলেন এমপি পুত্র

আপডেট: জুন ১২, ২০১৮, ১:২০ পূর্বাহ্ণ

বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি


নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলা আ’লীগের স্থায়ী কার্যালয় স্থাপনের জন্য সাড়ে ছয় শতাংশ জমি কিনে দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্যের ছেলে আসিফ আবদুুল্লাহ শোভন। বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়ক সংলগ্ন উপজেলার বড়াইগ্রাম ইউনিয়নের রয়না মৌজায় মানিকপুর এলাকায় ওই জমিটি গত সোমবার রেজিস্ট্র্রি সম্পন্ন হয়।
উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান জানান, নিজস্ব কার্যালয় করতে দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক মানিকপুর এলাকায় রায়না মৌজায় ১১৩৮ খতিয়ানের ১৫৩২ দাগের ১৪ শতাংশের কাত সাড়ে ছয় শতাংশ জমি দুই লাখ টাকা শতাংশ হিসেবে ১৩ লাখ টাকায় কেনার সিদ্ধান্ত হয়। এসময় স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুসের ছেলে আসিফ আবদুুল্লাহ শোভন জমিটির দাম পরিশোধ করে দান করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। সেই মোতাবেক গত সোমবার বড়াইগ্রাম সাবরেজিস্ট্রার অফিসে উপজেলা আ’লীগের নামে রেজিস্ট্র্রি সম্পন্ন হয়। তবে প্রথমে জমিটি দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে রেজিস্ট্রি করার ইচ্ছা পোষণ করে স্থানীয় আ’লীগ নেতৃবৃন্দ। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পূর্বানুমতি ছাড়া তাদের নামে জমি রেজিস্ট্র্রির সুযোগ না থাকায় উপজেলা আ’লীগের নামে ওই জমি রেজিস্ট্রি করা হয়। গ্রহিতা হিসেবে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আবদুুল জলিল প্রামাণিক স্বাক্ষর করেন। দাতা হিসেবে আবদুুর রহিম, রুবেল হোসেন ও রোজিনা বেগম স্বাক্ষর করেন। তারা উত্তরাধিকার সূত্রে ওই জমির মালিক ছিলেন।
এ বিষয়ে আবদুুর রহিম ও রুবেল হোসেন বলেন, আমরা জমি বিক্রির ১৩ লাখ টাকা বুঝে পেয়ে সুস্থ-স্বজ্ঞানে বড়াইগ্রাম সাবরেজিস্ট্রার অফিসে গিয়ে উপজেলা আ’লীগের নামে জমি দলিল করে দিয়েছি। জমিটি সম্পূর্ণ নিষ্কন্টক, এ জমিটি কোন ব্যক্তি, ব্যাংক বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের কাছে দায়বদ্ধ ছিলনা এখনও নাই।
গত রোববার ইফতার পূর্ব এ অনুষ্ঠানে উপজেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে স্থায়ী অফিসের জন্য জমি কেনার বিষয়টি আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা দেওয়া হয়। উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আবদুুল জলিলের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ অধ্যাপক আবদুুল কুদ্দুস, উপজেলা আ’লীগ সম্পাদক মিজানুর রহমান, বড়াইগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মমিন আলী, আ’লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম, অধ্যাপক জালাল উদ্দিন, মাসুদ রানা মান্নান, ইয়াছিন আলী, সাবান মাহমুদ, সাহাবুল আলম, পারভেজ, জমি বিক্রেতা আবদুর রহিম, রুবেল হোসেন প্রমূখ।
এসময় উপস্থিত নেতারা জানান, একটি চক্র জমি কেনার বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছাড়াও বিভিন্ন মাধ্যমে মিথ্যাচার করছে। ওইচক্র বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমকে মিথ্যা তথ্যদিয়ে প্রভাবিত করে ভুল সংবাদ পরিবেশন করাচ্ছেন। তারা সংশ্লিষ্টদের গুজবে কান না দেওয়ার অনুরোধ জানান।