বড়াইগ্রামে তপশিলের আগেই প্রচারণায় আ’লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা

আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০১৯, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি


(ছবিতে বাম থেকে) মিজানুর রহমান, আবদুর রাজ্জাক মোল্লা, সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, ডিএম রণি পারভেজ আলম, আরিফুর রহমান, আতাউর রহমান আতা, হযরত আলী, মোয়াজ্জেম হোসেন বাবলু-সোনার দেশ

আগামী মার্চ থেকে শুরু হবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এখনো তপশিল ঘোষণা হয় নি। মাত্র একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হলো। এর রেশ কাটতে না কাটতেই নতুন নির্বাচনের ডামাডোল। আর তাই তপশিলের জন্য অপেক্ষা না করে প্রচারণায় নেমে পড়েছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। তবে দলীয় প্রতীক পেলে বিজয় অনেকটা নিশ্চিত ভেবে আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের সমাগমই নজরে পড়ছে। অন্যদলের প্রার্থীরা দলীয় সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে নিশ্চুপ রয়েছেন।
আওয়ামীলীগ থেকে নির্বাচনের ইচ্ছা প্রকাশ করে প্রচারণা চালাচ্ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুল জলিল প্রামাণিক, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান, জেলা কমিটির শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ আবদুর রাজ্জাক মোল্লা, বর্তমান চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বাবলু, বনপাড়া পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আরিফুর রহমান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মাজেদুল বারী নয়ন।
এদিকে মহাজোটের শরিক জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক ডিএম রণি পারভেজ আলম, জাতীয় পার্টির উপজেলা সেক্রেটারী রেজাউল করিম, সহসভাপতি খাদেমুল ইসলাম প্রচারণা চালাচ্ছেণ।
বিএনপি থেকে বনপাড়া পৌর বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হযরত আলী, যুগ্ম সম্পাদক আবদুস সালাম, সদস্য সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম রাসেল এবং জামায়াতের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল হাকিম দলীয় সিদ্ধান্ত হলে নির্বাচন করার ইচ্ছ প্রকাশ করেছেন।
অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান বলেন, আমি দলীয় কর্মকাণ্ডের কারণে মাঠেই থাকি। গত ২০০৯ এবং ২০১৪ সালে দলীয় প্রতিক ছাড়া উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি। তৃণমূলে কাজ করে যাচ্ছি, বাকিটা সিদ্ধান্ত নেবেন দলের হাইকমান্ড। তবে দলের এখন সুদিন তাই এবার মনোনয় পেলে বিজয় নিশ্চিত বলে আমি মনে করি।
অধ্যক্ষ আবদুর রাজ্জাক মোল্লা বলেন, দলের জন্য নিরলস ভাবে শ্রম এবং অর্থ ব্যয় করে যাচ্ছি। সম্প্রতি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় সংসদ সদস্য প্রার্থী অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুসের প্রচারণায় প্রতিটি ভোটারের বাড়িতে গিয়েছি। এখন আবার নিজের জন্য যাচ্ছি, দলীয় মনোনয়ন পেলে বিজয় সময়ের বিষয় মাত্র। আর দল থেকে আমাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে বিশ্বাস করি।
আতাউর রহমান আতা বলেন, আমি ইতোপূর্বে ভাইস চেয়ারম্যান হলেও চার বছর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। পরিষদ চালানোর অভিজ্ঞতা আমার আছে। দল হয়তো আমার অভিজ্ঞতাকে মূল্যায়ন করবে।
ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসাবে বিজয়ী হয়ে উন্নয়নমূলক কাজ করেছি। এবার সাধারণ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে নির্বাচিত হতে চাই।
আবদুল জলিল প্রামাণিক বলেন, দলের জন্য আজীবন করে গেছি কোন নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করিনি। এবারই প্রথম নির্বাচনের ইচ্ছ প্রকাশ করেছি। বিশ্বাস করি দলীয় মনোনয়ন পেলে অবশ্যই বিজয়ী হবে।
জাসদের ডিএম রণি পারভেজ আলম বলেন, মহাজোট থেকে আমাকে মনোনয় দেওয়া হলে বিজয় সময়ের বিষয় মাত্র। ছাত্রজীবন থেকে রাজনীতির মাঠে রয়েছি, এবার জনপ্রতিনিধি হয়ে রাজনৈতিক জীবনের স্বার্থকতা অর্জনের ইচ্ছে আমার।