‘বড় রান না করলে টিকে থাকা মুশকিল’

আপডেট: অক্টোবর ১৪, ২০১৯, ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সময়টা তার পক্ষে ছিল না। জাতীয় দলের বাইরে ছিলেন। ওই সময়টায় অসুস্থ হয়ে পড়ে তার ছেলে। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত ছেলেকে নিয়ে যেতে হয়েছিল সিঙ্গাপুরে। সেখানেই চলে চিকিৎসা।
ক্রিকেট থেকে ইমরুল কায়েস দূরে চলে যান দীর্ঘ সময়ের জন্য। অথচ তামিম ইকবালের বিশ্রামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে তাকে বিবেচনা করছিলেন নির্বাচকরা। ব্যাট-বলে সময়টা মেলেনি। ইমরুলের তাই জাতীয় দলে ফেরা হয়নি। এবার কি হবে? নির্বাচকরা কি ভাববেন তাকে নিয়ে? দল নির্বাচনের টেবিলে তাকে নিয়ে যেন আলোচনা হয়, সেই উপলক্ষটা তৈরি করে দিলেন বাঁহাতি ব্যাটসসম্যান।
ওয়ালটন ২১তম জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রথম রাউন্ডে খুলনা বিভাগের হয়ে ব্যাট হাতে অপরাজিত ২০২ রানের নজরকাড়া ইনিংস খেলেছেন ইমরুল। সতীর্থরা যখন আসা-যাওয়ার মিছিলে, তখন ইমরুল ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়ান ২২ গজে। নবম উইকেটে রুবেল হোসেনকে নিয়ে তার জুটি ৮৪ রানের, যেখানে ইমরুলের অবদান ৮২। আর শেষ উইকেটে আল-আমিন ও তার জুটিতে আসে ৪২ রান। আল-আমিনের অবদান ১।
লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে এমন লড়াইয়ের মানসিকতা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা দেখাতে পারেন খুব কম। ইমরুল নিজের ওপর আস্থা রেখে সেই কাজ করে গেছেন অনায়াসে। ১৯ চার ও ৬ ছক্কায় পেয়েছেন জাতীয় লিগে তার প্রথম ডাবলের স্বাদ। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয়।
নিজের জন্য রান করতে মুখিয়ে ইমরুল। প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে এখন বড় রানের দিকেই নজর তার, ‘এখন তো অনেক প্রতিযোগিতা। তরুণরা ভালো করছে। এদের মধ্যে জায়গা করতে হলে সব সময়ই চ্যালেঞ্জ নিতে হবে। নিজের সেরাটা দিতে হবে। বড় রান না করলে আসলে টিকে থাকা মুশকিল। ইচ্ছা ছিল বড় রান করব। ফাইনালি সেটা হলো।’
খেলার মধ্যে ছিলেন না ইমরুল। সিঙ্গাপুরে থাকতে হয়েছিল দীর্ঘদিন। এরপর দেশে ফিরে ফিটনেস টেস্টে পাশ করে মিলেছে খেলার টিকিট। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান জানালেন, সিঙ্গাপুরে কিছুদিন ফিটনেস নিয়ে কাজ করার সুযোগ পেয়েছিলেন। সেই ট্রেনিং তাকে চাঙ্গা রাখছে বর্তমান সময়ে।
‘খেলার মধ্যে ছিলাম না কয়েকদিন। ব্যাটিং অনুশীলন করা হচ্ছিল না। কিন্তু ফিটনেসটা যাতে না পড়ে সেই চেষ্টা করেছি। সিঙ্গাপুরে রাতের বেলা বের হয়ে ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছি। যাতে ফিরেই স্বচ্ছন্দে ব্যাটিংটা করতে পারি। আমার মনে হয় সেটা আমাকে চাঙ্গা রেখেছে।’
ইমরুল জানেন না তাকে ভারত সিরিজের দলে বিবেচনা করা হবে কি না। তবে একটা বিষয় বলে রাখা ভালো, দল থেকে যতবারই ইমরুল বাদ পড়েছেন, ততবারই পারফর্ম করে দলে ঢুকেছেন। আজকের ডাবল সেঞ্চুরি হয়তো সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে। ইমরুল জানালেন, আত্মবিশ্বাসে জ্বালানি পেয়েছেন ভালোই। পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চান সামনেও। ‘যদি সুযোগ পাই তখন বলা যাবে এটা কাজে লাগবে কি না, তার আগে তো কিছু বলা যায় না। তবে রান করলে তো নিজের একটা আত্মবিশ্বাস পাওয়া যায়। ফিরে আসার জন্য একটা জ্বালানি পাওয়া যায়।’