বয়স ১০৭, এখনও সমান দক্ষতায় চুল কাটেন এই নাপিত

আপডেট: অক্টোবর ১০, ২০১৮, ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বিশ্বের প্রবীণতম নাপিতের খেতাব পেয়েছিলেন বছর দশেক আগেই। সেটা ছিল ২০০৭ সাল। ৯৬ বছর বয়সেই তাঁর নাম উঠেছিল গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে। অ্যান্টোনি ম্যানচিনেলি এখনও সমান দক্ষ। যাকে বলে ১০৭ নট আউট, ইনি ঠিক তাই। থাকেন নিউ ইয়র্কের কাছে। একটি অত্যাধুনিক সেলুন চালান অ্যান্টোনি।
১০৭ বছর বয়সেও এক্কেবারে সাবলীল তাঁর হাত। আগের মতোই নিয়মিত সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চুল কাটেন খদ্দেরদের। বেশ কিছু বাঁধা খদ্দের আছে অ্যান্টোনির। হাল ফ্যাশানের ছাঁট তিনি এত দ্রুত আর এত ভাল কাটতে পারেন যে বোঝায় যায় না তাঁর বয়স ১০৭। মজার কথা হল হালের ফ্যাশন ট্রেন্ড তিনি এই বয়সে এসেও রপ্ত করে ফেলেছেন। তাই তাঁর বাঁধা খদ্দেরদের মধ্যে রয়েছে বেশ কিছু একালের ছেলে মেয়েও। অ্যান্টোনি সেই ১১ বছর বয়স থেকে চুল কাটছেন। ৯৬ বছরের অভিজ্ঞতা শেষ বয়সে এসে ভালই কাজে দিচ্ছে। তাঁরই এক খদ্দের জানাচ্ছেন, “আমি অ্যান্টোনি ছাড়া অন্য কাউকে আমার চুলে হাত লাগাতে দিই না। এত নিখুঁতভাবে চুল কাটেন যে বুঝতেই পারি না। মজার ব্যাপার হল উনি খুব দ্রুত কাজ করেন। ২০ বছরের ছেলেরাও ওঁর মতো গতিতে চুল কাটাতে পারে না। গত কয়েক বছর ধরে দেখছি উনি অসুস্থতার জন্য একদিনও সেলুন বন্ধ রাখেন না।”
সেলুন থেকে কিছুটা দূরে একাই থাকেন অ্যান্টোনি। তাঁর ৮০ বছর বয়সী ছেলে একটু দূরেই থাকে। তবে, ছেলের সাহায্য নেয়াটা পছন্দ করেন না ১০৭ বছরের বৃদ্ধ। বাড়িতে কাজের লোক আছে, কিন্তু রান্নাটা করেন নিজেই। নিজেই গাড়ি চালিয়ে যান সেলুনে। সেলুনের জিনিসপত্র পরিষ্কার করেন নিজের হাতে। প্রতিদিন কাজে যাওয়ার আগে মৃত স্ত্রীর সমাধিস্থলে যান শ্রদ্ধা জানাতে। ব্যস, এই তাঁর ডেইলি রুটিন। মজার বিষয়, এত বেশি বয়সেও তাঁর শরীরে কোনওরকম জটিলতা নেই। তাঁর খদ্দেররা এখনও তাঁর দীর্ঘায়ু কামনা করছেন। যাতে আগামী বছরগুলিতেও তাঁর কাছেই চুল কাটতে পারেন।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন