ভোরের কাগজের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিল লিকু

আপডেট: এপ্রিল ১৭, ২০১৮, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি


ভোরের কাগজের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে রাজশাহী মহানগর শাখা ওয়ার্কার্স পার্টি। গতকাল রোববার রাজশাহীর চিফ মেট্রোপলিটন আদালত ক অঞ্চলের বিচারক অতিরিক্ত সিএমএম জুলফিকার উল্লাহ্ মামলা প্রত্যাহারের আবেদনটি গ্রহণ করে মামলাটি নিষ্পত্তির আদেশ প্রদান করেন। এর আগে দেশব্যাপী বিপুল সমালোচনার মুখে মহানগর শাখা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু রাজশাহী চিফ মেট্রোপলিটন আদালত-৩ এ মামলা প্রত্যাহারের আবেদন করেন।
বাদীর আইনজীবী এন্তাজুল হক বাবু গত ২৬ জানুয়ারি মামলা প্রত্যাহারের আবেদন জমা দিয়ে বলেন, ’বাদী মামলা চালাতে আগ্রহী নন।’ আদালত আবেদনটি গ্রহণ করে এবং ধার্য তারিখে মামলা নিষ্পত্তির আদেশ দেয়া হবে তখন জানান। মামলা প্রত্যাহারের আবেদন জমা দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে টানা দেড় বছর ধরে রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশার সাথে রাজশাহী প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিলো তার অবসান ঘটে।
২০১৬ সালের ১৪ জুলাই দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকার শেষ পাতায় রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন ‘বাদশাকে নিয়ে রাজশাহীর ১৪ দলে টানাপোড়ন’ শীর্ষক বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যবহুল একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে ক্ষুদ্ধ হয়ে রাজশাহী মহানগর শাখা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং ভোরের কাগজের স্থানীয় প্রতিবেদক রাজশাহী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন। মানহানির কোনো মেরিট না থাকা এই মামলাকে কেন্দ্র করে সারাদেশে নানামুখী প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা ব্যাপকভাবে সমালোচিতও হন। দেশব্যাপী আনেদালনের ঝড় ওঠে। দেশের বিভিন্নস্থানে সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ফজলে হোসেন বাদশা দায় এড়ানোর জন্য বিভিন্ন টেলিভিশনের টকশোতে বলেন, মামলার বিষয়টি তিনি জানেন না। পার্টির স্থানীয় শাখা মামলাটি করেছে। যদিও মামলার সার্টিফাইড কপিতে দেখা যায় ফজলে হোসেন বাদশার নির্দেশেই মামলাটি দায়ের করা হয়েছিলো এবং এই বিতর্কিত মামলার তিনিই এক নম্বর সাক্ষি ছিলেন।