মধ্য বসন্তে শীতের আমেজ

আপডেট: মার্চ ৭, ২০১৯, ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


মধ্য বসন্তে এসেও প্রতিদিন ভোরে কুয়াশা পড়ছে-সোনার দেশ

প্রকৃতিতে মধ্য বসন্ত। সপ্তাজুড়ে দিন-রাতে থেমে থেমে পড়ছে বৃষ্টি। কখনও বৃষ্টি, সঙ্গে ঝড়ছে শিলাও। বৃষ্টির কারণে আকাশে মেঘ থাকলে আবহাওয়া গরম থাকছে। বৃষ্টি শেষে ফের পড়ছে ঠাণ্ডাও। গত কয়েক দিন ধরে সকালের দিকে ঘন কুয়াশা পড়ছে রাজশাহী অঞ্চলজুড়ে।
আকাশ ঘনকুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকায় সূর্যের দেখা মিলছে বেলা গড়িয়ে। গতকাল বুধবার সকালেও পৌষ মাসের মতো ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে উত্তরাঞ্চল। সকালে যানবাহনগুলোকে হেডলাইট জ্বালিয়ে ধীরগতিতে চলতে দেখা গেছে। ঘন কুয়াশায় উত্তরে হিমেল হাওয়া ফের শীতের আঁচ দিচ্ছে শেষ ফাল্গুনে।
অবহাওয়া অফিস বলছে, বৃষ্টির পরে উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে তাপমাত্রা নেমে যায় ৪ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। আর গত শনিবার রাজশাহীতে রাতের তাপমাত্রা নেমে যায় ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার ভোরে রাজশাহীতে তাপমাত্রা রেকর্ড হয় ১৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন সোমবার ভোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার সারা দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ২৭ দশমিক ৮ ও সর্বনিম্ন ছিলো ১৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এদিকে কদিনের ঠাণ্ডা-গরমে বেড়েছে রোগবালাই। আবহাওয়া কখনও গরম, কখনও ঠাণ্ডার এ টানাপোড়নে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে রোগজীবাণু। এর জেরে এখন ঘরে-ঘরে সর্দি, কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট, অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হচ্ছেন মানুষ।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহিদা খাতুন জানান, হঠাৎ করেই আবারও আবহাওয়া পরিবর্তিত হয়ে শীতের আমেজ এসেছে প্রকৃতিতিতে। ফলে কখনও গরম, কখনও ঠাণ্ডার এই টানাপড়েনে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে রোগজীবাণু। তার জেরে এখন ঘরে-ঘরে সর্দি, কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট, অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হচ্ছেন মানুষ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ