মহাদেবপুরে চকগৌরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভবনের অভাবে পাঠদান ব্যাহত

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯, ১:১৩ পূর্বাহ্ণ

মহাদেবপুর প্রতিনিধি


মহাদেবপুরে চকগৌরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-সোনার দেশ

ভাদ্রের এই তীব্র গরমে টিনসেটের নিচে প্রতিদিনই চলছে কমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান। ঝড়-বৃষ্টি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে জীবনের ঝুকি নিয়ে টিনসেটের ক্লাসরুমে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করতে হয়। শিক্ষকদের আন্তরিকতা থাকা সত্ত্বেও একটি নতুন ভবনের অভাবে প্রতিবছই কমছে শিক্ষার্থী। নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার চকগৌরি জায়েদা বেগম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ২৩ মার্চ ২০১৭ সালে সরকারি হলেও অদ্যবধি সরকারি নতুন কোন ভবন নির্মাণ হয়নি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রাথমিক শিক্ষার যে পরিবর্তন এসেছে প্রায় প্রতিটি বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মিত হয়েছে। সারা দেশের এই উন্নযন চোখে পড়ার মতো হলেও নওগাঁর মহাদেবপুরে চকগৌরি জায়েদা বেগম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি তার ছোয়া লাগেনি ।
উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলের বিদ্যালয়টিতে নতুন ভবন হলে শিক্ষার গুণগতমানসহ শিক্ষার্থী বৃদ্ধি পাবে। বিদ্যারয়টিতে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, টিনসেটের ৩টি ক্লাসরুম ও শিক্ষকরে জন্য ১টি আধাপাকা অফিসরুম রয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামাল হোসেন জানান, তিনিসহ মোট ৪ জন শিক্ষক এ বিদ্যালয়ে করর্মরত রয়েছেন। তীব্র রোদে ভ্যবসা গরম ও বৃষ্টির শব্দে পাঠদানের সমস্যা হলেও সরকারি ছুটি ব্যতিত প্রতিদিন আন্তরিকতার সঙ্গে পাঠদান করছি। ১ জানুয়ারি ২০১০ সালে বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় এবং ২৩ মার্চ ২০১৭ সালে সরকারিকরণ হলেও অদ্যবধি আমিসহ শিক্ষকগণ সরকারি বেতনভাতা পাই না।
বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসা উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আনোয়ার হোসেন জানান, বিদ্যালয়টি প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে হলেও এখানে কোলাহল মুক্ত নিরিবেলি পরিবেশে শিক্ষকগণ ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান করে থাকেন। তবে এ বিদ্যালয়টিতে একটি সরকারি ভবন নির্মাণ হলে এ এলাকার শিক্ষাব্যাবস্থার উন্নতি ঘটবে। হামিদপুর গ্রামের কুমারেশ ও গৌউর, চকগৌরি গ্রামের অভিভাবক মিজানুর রহমান জানান, বিদ্যালয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর উপস্থিতি ভালো থাকলেও একটি নতুন সরকারি ভবনের দাবি এলাকাবাসীর।
এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাযহারুল ইসলাম জানান, সরকার সুদৃষ্টি দিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চকগৌরি জায়েদা বেগম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ করলে ছাত্র-ছাত্রী বৃদ্ধি ও মানসম্পন্ন শিক্ষায় সহায়ক হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ