মাধ্যমিকে উপবৃত্তির টাকা প্রদান বাদ পড়ছে বিকাশ-শিওর ক্যাশ, দায়িত্ব পাচ্ছে রকেট

আপডেট: জানুয়ারি ৮, ২০১৮, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা তিন প্রতিষ্ঠান এজন্য আবেদন করলেও বিকাশ ও রূপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশকে বিবেচনায় নিচ্ছে না মাধ্যমিক শিক্ষা উপবৃত্তি প্রকল্প কার্যালয়। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের (ডিবিবিএল) রকেটের মাধ্যমেই মাধ্যমিকের উপবৃত্তির টাকা প্রদান সহজ হবে বলে মত দিয়েছে প্রকল্প কার্যালয়। এ-সংক্রান্ত সুপারিশও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে মাধ্যমিকের উপবৃত্তির অর্থ বিতরণের দায়িত্ব পেতে আবেদন করে ডিবিবিএলের রকেট, রূপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশ ও বিকাশ। এর মধ্যে ডিবিবিএল ও বিকাশ কোনো সার্ভিস চার্জ ছাড়াই সেবাটি দেবে বলে আবেদনে উল্লেখ করে। আর শিওর ক্যাশ শূন্য দশমিক ৪৮ শতাংশ হারে সার্ভিস চার্জ দাবি করে। ডিবিবিএল ও শিওর ক্যাশ এজেন্ট চার্জ হিসেবে চায় শূন্য দশমিক ৯ শতাংশ। তবে বিকাশ এজেন্ট চার্জ ছাড়াই সেবাটি দিতে আগ্রহী। আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই শেষে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে সুপারিশ পাঠিয়েছে প্রকল্প কার্যালয়। সুপারিশে বলা হয়েছে, বিকাশ কোনো ব্যাংক নয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিপত্র অনুযায়ী শুধু যেসব ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা রয়েছে, সেসব ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে বিকাশের সঙ্গে চুক্তি করা সমীচীন হবে না। রূপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশের বিষয়েও আপত্তি জানিয়েছে প্রকল্প কার্যালয়। বলা হয়েছে, রূপালী ব্যাংকের (শিওর ক্যাশ) সঙ্গে চুক্তি হলে নতুন করে ১৬ লাখ মোবাইল অ্যাকাউন্ট খোলার প্রয়োজন পড়বে। এতে নির্ধারিত সময়ে প্রকল্প সম্পন্ন করা কঠিন হবে। ডিবিবিএলের রকেটের পক্ষে সুপারিশ করে প্রকল্প কার্যালয় বলেছে, প্রায় ১২ লাখ শিক্ষার্থীর মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টসহ তথ্যভা-ার ডিবিবিএলের কাছে রয়েছে। এতে তাদের মাধ্যমে দ্বিতীয় কিস্তির উপবৃত্তির অর্থ বিতরণ সহজ হবে। জানতে চাইলে প্রকল্প পরিচালক শরীফ মোর্তজা মামুন বণিক বার্তাকে বলেন, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রস্তাবনা সম্পর্কে এরই মধ্যে মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। মন্ত্রণালয় যে সিদ্ধান্ত দেবে, সে অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করা হবে।
শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে ২০১৫ সালের জুনে অগ্রণী ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি করা হয়। তবে নিজেদের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম না থাকায় বেসরকারি খাতের ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে এ সেবা দেয় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকটি। ২০১৪-এর জুলাই থেকে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত এ কার্যক্রম পরিচালনা করে ডিবিবিএল। এক্ষেত্রে ডিবিবিএলের সেবার জন্য চার্জ ছাড়াও অগ্রণী ব্যাংক এর অতিরিক্ত চার্জ নেয়। ফলে সেবাটির জন্য বাড়তি সার্ভিস চার্জ দিতে হয়েছে। এরই মধ্যে প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপবৃত্তির অর্থ অভিভাবকের মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টে দেয়া হয়। এক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জের পরিমাণ বেশি। সরকারের অর্থে এসব প্রকল্প পরিচালিত হয় বলে সরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে উপবৃত্তি প্রদানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে নিজেদের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা না থাকায় অন্য একটি ব্যাংকের মাধ্যমে সেবাটি দিতে গিয়ে অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ গুনতে হচ্ছে।

এজন্য সার্ভিস চার্জ নির্ধারণের বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে অনুরোধ করে প্রকল্প কার্যালয়। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইস্যু করা নীতিমালায় ব্যাংকের মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সেবা কার্যক্রমের চার্জ নির্ধারিত রয়েছে। ফলে পুরো প্রক্রিয়াটি চার্জমুক্ত করার সুযোগ নেই। তবে সরাসরি মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সেবাদাতা ব্যাংক বা সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে চুক্তি করা হলে সার্ভিস চার্জ কমে আসবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালিত আর্থিক অন্তর্ভুক্তি ও আর্থিক শিক্ষা কার্যক্রমে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সম্পৃক্ত করার বিষয়ে অনুষ্ঠিত এক সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন অধিদপ্তরের মাধ্যমে পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে অনলাইন ব্যাংকিং ও এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে উপবৃত্তির অর্থ প্রদান করা যেতে পারে। এছাড়া অনলাইন ব্যাংকিং ও এজেন্ট ব্যাংকিং নেই, এমন এলাকায় মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের মাধ্যমে উপবৃত্তি প্রদানের ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ হ্রাসের জন্য প্রতিযোগিতামূলক ফি নির্ধারণে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে চুক্তি করা যেতে পারে।