মালয়েশিয়ায় ‘বাংলাদেশি পাচার চক্র’র হোতা আটক

আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০১৮, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


‘এবং বাংলা’ নামের এক বাংলাদেশি পাচারকারী চক্রকে শনাক্ত করার কথা জানিয়েছে মালয়েশিয়া। দেশটির সংবাদমাধ্যম ‘দ্য স্টার’-এর অনলাইন ভার্সনে ওই চক্রের হোতাকে আটকের খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। মালয়েশিয়ার অভিবাসন কর্তৃপক্ষকে উদ্ধৃত করে ওই সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, কয়েক সপ্তাহের নজরদারি শেষে শুক্রবার শাহ আলম নামের অঞ্চলে অভিযান চালিয়ে ৫০ জন ‘অবৈধ বাংলাদেশি’র পাশাপাশি ‘এবং বাংলা’ পাচার-চক্রের প্রধানকে আটক করা হয়।
মালয়েশিয়ায় দএবং বাংলাদ নামের পাচার চক্রের সন্ধান
মালয়েশিয়ায় কর্মরত বিভিন্ন দেশের অবৈধ শ্রমিকদের বৈধতা নিশ্চিতের জন্য ২০১৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় দিয়েছে সে দেশের অভিবাসন কর্তৃপক্ষ। তবে আপাত ব্যবস্থা হিসেবে ওই অবৈধ শ্রমিকদের গত বছরের ৩০ জুনের মধ্যে ই-কার্ড তথা কাজের অনুমতিপত্র সংগ্রহ করতে বলেছিল তারা। এই সময়সীমা কোনওভাবে বাড়ানো হবে না জানিয়ে নির্ধারিত সময় পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অভিযানের মধ্য দিয়ে অবৈধদের গ্রেফতার শুরু করে মালয়েশিয়া। তবে বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা সেই সময় তাদের বিবৃতিতে জানায়, অবৈধ শ্রমিকেরা পাচার চক্র ও নিয়োগদাতাদের প্রতারণার শিকার।
শুক্রবার মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি মুস্তাফার আলীর বরাত দিয়ে স্টার অনলাইনের খবরে বলা হয়, কয়েক সপ্তাহ নজরদারির পর শুক্রবার অভিবাসন কতৃপক্ষ শাহ আলম এলাকার একটি বাড়িতে তল্লাশি চালায়। সেখানে ‘এবং বাংলা’ নামের এক পাচার চক্রকে শনাক্ত করতে সক্ষম হয় তারা। অভিযানে পাচার চক্রের প্রধানসহ একজন মালয়েশিয়ান নাগরিককে সেখান থেকে আটক করা হয়। ৫০ জন বাংলাদেশি অবৈধ অভিবাসীও আটক হয় একই বাড়ি থেকে। মুস্তাফার আলী স্টার অনলাইন বলেন, ‘গ্রেফতারকৃতদের বেশিরভাগই নিষিদ্ধ তালিকাভুক্ত। তারা ঢাকা থেকে ইন্দোনেশিয়ার জার্কাতায় আসেন। পরে নৌকায় করে অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করেন।’
স্টার অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, আটককৃতদের বয়স ২০ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে। দাতুক সেরি মুস্তাফার আলী বলেন, ‘আটককৃতরা আগেও মালয়েশিয়ায় এসেছিলেন। বৈধ কাগজপত্র নিয়ে প্রবেশ না করায়, অথবা মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও কাজ করার অভিযোগে তাদের আটক করা হয়েছিল। নিষিদ্ধ তালিকাভূক্ত থাকার কারণে এবার তাদের বৈধপথে আসার সুযোগ ছিল না। আটককৃতদের কাছে থেকে ১৩ হাজার মালয়েশিয়ান মুদ্রাও জব্দ করা হয়েছে বলে জানান মুস্তাফির আলী।
তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন