মোহনপুরে পুলিশের মারপিটে ১০ শ্রমিক আহত || প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ

আপডেট: জুন ৪, ২০১৮, ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

কেশরহাট প্রতিনিধি


রাজশাহীর মোহনপুরের কামারপাড়া বাজারে সিএনজি আটক করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের মারপিটে অন্তত ১০ শ্রমিক আহত হয়েছেন। এসময় প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপি রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় ইফতার মহূর্তে চরম দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।
সরজমিন গিয়ে জানা গেছে, গতকাল রোববার বিকেল ৫ টার দিকে নওগাঁর দিক থেকে ছেড়ে আসা একটি সিএনজি দাঁড় করান শ্রমিক কল্যাণের নেতারা। এসময় সিএনজির যাত্রীরা পুলিশ পরিচয় দিলে শ্রমিকরা সিএনজি ছেড়ে দিলেও সেখানকার চেক পোস্টের দায়িত্ব এসআই আমিনুল সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে শ্রমিকদের কৌশলে ডেকে একটি ঘরে তুলে পিটিয়ে আহত করে। এসময় কামারপাড়া শ্রমিক কল্যাণ সমিতি সভাপতি আমজাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রুস্তম আলীসহ শ্রমিক আবদুল হান্নান, সাইফুল ইসলাম, মুরাদ ও মতিনসহ ১০ জন আহত হন।
এখবর ছড়িয়ে পড়লে উপস্থিত জনতা পুলিশ সদস্যদের আটকে রেখে সবধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন। এসময় বিকেল ৫ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের দুপ্রান্তে প্রায় ৩ কিলোমিটার রাস্তা তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। অবশেষে কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টের অনুরোধে পরবর্তীতে বসে পুলিশের মারধরের ঘটনাটি নিরসনের আশ্বাস দিলে যানবাহন ছেড়ে দেয় শ্রমিক নেতারা।
কামারপাড়া শ্রমিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি আমজাদ হোসেন বলেন পুলিশ গায়ে পড়ে আমাদের পেটায়। এতে আমিসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছি। পরবর্তীতে দূরের যাত্রীদের দুর্ভোগের কথা ভেবে এবং পুলিশের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দিলে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও জেলা শ্রমিক নেতাদের নিয়ে রাতেই আলোচনায় বসা হবে। সুষ্ঠু বিচার না পেলে আগামীকাল থেকে মহাসড়ক অবরোধের কর্মসূচি দেয়া হবে। এছাড়াও তিনি তিন পুলিশকে প্রত্যারের দাবি জানান।
ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) আমিনুল ইসলাম বলেন, শ্রমিকদের সঙ্গে যা কিছু হয়েছে তা সিএনজির যাত্রীদের সঙ্গে হয়েছে। শ্রমিকরা যানবাহন আটকালে আমরা শ্রমিক নেতাদের যানবাহন ছেড়ে দেয়ার অনুরোধটুকু করেছি মাত্র। কোনোপ্রকার মারধর করা হয়নি।
এ বিষয়ে জানতে মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম আবুল কাশেমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার রিং দিলেও রিসিভ করেন নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ