রাজশাহীতে সড়কে বাস চলাচল স্বাভাবিক, তবে সংখ্যায় কম

আপডেট: নভেম্বর ২০, ২০১৯, ১:১২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহীতে সড়কে বাস চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকেই ঢাকা, রংপুর, বগুড়া, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও পাবনার উদ্দেশ্য বাস ছেড়ে গেছে। তবে অন্যান্য স্বাভাবিক দিনের চেয়ে সড়কে কম বাস চলাচল করছে। অন্য জেলা থেকে বাস কম আসায় বাসের সংখ্যা কম বলে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। তবে চালকরা বলছেন, নতুক সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ তে জরিমানা বৃদ্ধি ও শাস্তির মেয়াদ বাড়ানোর আতঙ্কে অনেক চালক ভয়ে বাস চালাচ্ছেন না।
গতকাল দুপুরে নগরীর ভদ্রা মোড়, রেলগেট ও শিরোইল বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা গেছে, প্রত্যেকটা স্থান থেকেই বাসগুলো ছেড়ে যাচ্ছে। তবে বাসের পরিমাণ সংখ্যায় কম। মঙ্গলবার দুপুরে ভদ্রা মোড় থেকে রংপুর ও পাবনাগামী বাস ছেড়ে যেতে দেখা গেছে। এছাড়া রেলগেট থেকে নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী বাসও ছেড়ে গেছে। আর শিরোইল বাস টার্মিনাল থেকে আন্তঃউপজেলা এবং শিরোইল বাসস্ট্যান্ড থেকে ঢাকাগামী বাস ছেড়ে যেতে দেখা গেছে।
তবে বাসগুলো রাজশাহী থেকে ছেড়ে গেলেও তাদের গন্তব্যস্থানে পৌঁছতে অনেক জেলায় বাধার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। নওগাঁর রুটের এক বাসচালক বলেন, আমরা সরাসরি নওগাঁয় যেতে পারছি না। আমরা যাত্রী নিয়ে মান্দার সাবাই হাট পর্যন্ত যেতে পারছি। সেখান থেকে আবার ফেরত আসতে হচ্ছে।
পাবনাগামী এক বাসচালক বলেন, আমরা পাবনার যাত্রী তুলেছি। কিন্তু পাবনা পর্যন্ত যেতে না পারলে নাটোরে থেকে চলে আসতে হবে।
এক চালক বলেন, নতুন আইনে চালকদের জরিমানা ও শাস্তির মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। একজন চালক এক ট্রিপে ৫০০ টাকা আয় করেন। কিন্তু জরিমানা করা হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। এই টাকা কীভাবে দিবে একজন চালক। এছাড়া কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে চালককে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হবে। তাহলে তার সংসার চলবে কীভাবে? দুর্ঘটনা কোনস্থানে ঘটেনা। সব স্থানেই তো দুর্ঘটনা আছে।
রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলী বলেন, রাজশাহীর সব বাসই চলাচল করছে। কোনো অসুবিধা হচ্ছে না। তবে অন্যান্য জেলার বাস কম আসছে রাজশাহীতে। তবে যেসব বাস আসছে তারা ঠিকভাবে রাজশাহী থেকে যাত্রী নিয়ে চলেও যাচ্ছে। তবে চালকরা নতুন পরিবহন আইন-২০১৮ নিয়ে ভয় ও আতঙ্কে রয়েছেন। তারা আইনে জরিমানার পরিমাণ কমিয়ে জামিনযুক্ত শাস্তির কথা বলেছেন।
এদিকে বাসের সংখ্যা কম থাকায় অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ারও অভিযোগ উঠেছে হেলপার ও চালকদের বিরুদ্ধে। অনেক যাত্রীরা চলাচলের জন্য ইজিবাইক, সিএনজি ও টেম্পুতেও কাছের উপজেলাগুলোতে চলাচল করছেন।
আশরাফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি বলেন, তার বগুড়া যাওয়া খুবই জরুরি। কিন্তু বগুড়ায় বাস চলাচল করছে না। রংপুরের বাসে যেতে হবে। আর টিকিটও কাটতে হবে রংপুরের। যেখানে বগুড়ার ভাড়া ১২০ টাকা সেখানে ২৪০ টাকা দিয়ে রংপুরের টিকিট কাটতে হলো।
এদিকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ সংশোধনের দাবিতে আজ বুধবার সকাল ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য পণ্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে।
তবে এ ধর্মঘটে নেই রাজশাহী জেলা ট্রাক-ট্রাংকলরি-ক্যাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. আক্কাস আলী বলেন, ওই সংগঠনের রাজশাহীতে কেউ নেই। আমরা ওই সংগঠনের সাথে যুক্ত না। আমাদের সিদ্ধান্ত, রাজশাহীতে সব ধরনের ট্রাক-ট্রাংকলরি ও ক্যাভার্ডভ্যান চলাচল করবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ