রাজশাহীর রেশম শিল্পের হারানো ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতেই হবে : প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম

আপডেট: আগস্ট ১০, ২০১৮, ১:১১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহীর রেশম শিল্পের হারানো ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতেই হবে : প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেছেন, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সিল্ক রাজশাহীর রেশম শিল্পের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতেই হবে। তিনি বলেন, এমনভাবে প্রকল্প তৈরি করতে হবে যাতে হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়। যে কোনো ধরনের প্রকল্পের প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয় পাশ করতে প্রস্তুত।
প্রতিমন্ত্রী বৃহস্পতিবার বিকালে বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড, রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত ১০ম জাতীয় সংসদের বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩২তম সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে তিনি একথা বলেন। এ সময় সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, রেশমকে সামনের দিগে এগিয়ে নিতে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রস্তাবনা মোতাবেক কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে যেকোনো প্রতিষ্ঠানকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা সম্ভব।
বৈঠকে ‘বস্ত্র বিল ২০১৮’ বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড এবং বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট এর কার্যক্রম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। কমিটি বৈঠকে ‘বস্ত্র বিল ২০১৮’ এর বিলের দফায় কতিপয় সংযোজন ও বিয়োজন করে সংশোধন সাপেক্ষে মহান জাতীয় সংসদে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রদানের সুপারিশ প্রদান করেন। সারা দেশে রেশম চাষের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন ও মেগা প্রকল্প গ্রহণ করার জন্য মন্ত্রণালয়কে কমিটি সুপারিশ করে।
বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকা- সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে জরুরি ভিত্তিতে অর্গানোগ্রাম এবং স্কেল ভেটিং এর কার্যক্রম সম্পন্ন করার বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে আগামী ছয় মাসের মধ্যে চাষী ও বসনীদের ডাটাবেইজ প্রস্তুতকরণ করা ও কারখানা পরিচালনা বাবদ তহবিল সংগ্রহের জন্য রেশম চাষীদেরকে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে অন্তর্ভূক্ত করার জন্য কমিটি সুপারিশ করে।
বৈঠকে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড, পাট অধিদফতর ও বস্ত্র অধিদফতরের মহাপরিচালক, তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান, লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের প্রতিনিধিসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।