রাজশাহী পলিটেকনিকে ন্যক্কারজনক ঘটনা সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক

আপডেট: নভেম্বর ৫, ২০১৯, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদউদ্দিন আহম্মেদকে পুকুরে ফেলের ঘটনায় বিবেকবান মানুষমাত্রই হতবিহ্বল হয়েছেন। এটাও কি সম্ভব? ছাত্ররা লেখাপড়া শিখে নিজেদের উন্নত ভবিষ্যত গড়ে তুলবে, দেশের মুখ উজ্জ্বল করবেÑ সেই শিক্ষার্থীদের একটা উচ্ছৃঙ্খল গ্রুপ অধ্যক্ষকে টেনে-হিঁচড়ে পুকুরে নিক্ষেপ করে! ওই অধ্যক্ষ তাদের অভিভাবক, পিতৃতুল্য সম্মানীয়Ñ তাকেই তারা অন্যায় আবদার পূরণ না করার দায়ে হেনস্তা করলো! বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকাণ্ডসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ছাত্রলীগ নামধারীদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড যখন সংবাদ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হচ্ছেÑ ঠিক তখনই রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে এই অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটে গেল। এই পরিস্থিতি শিক্ষাঙ্গণের রুগ্ন দশাকেই তুলে ধরেছে।
ক্ষমতাসীন দলের ছাত্ররা এই ঘৃণিত কাজটি সংঘটিত করলেও তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থার ক্ষেত্রে কোনোরূপ কার্পণ্য দেখায় নি পুলিশ বিভাগ। তারা ত্বরিৎ গতিতেই ওই ন্যক্কারজনক ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে মাঠে নেমেছেন। সোমবার পর্যন্ত ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এক ছাত্রকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বিভাগীয় তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে এবং সেই টিম সোমবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরের তথ্য অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিতে সব সেমিস্টারের ফরম পূরণ চলছে। ছয় মাসের একটি করে সেমিস্টারের কোর্স হয়। ছয় মাসের মধ্যে এক দিনেও ক্লাসে আসেনি এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১৫০ জন। এই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ করতে দেয়া হয়নি। শিক্ষার্থীরা ফরম পূরণের জন্য জানালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদউদ্দিন আহম্মেদ শিক্ষার্থীদের তাদের অভিভাবককে নিয়ে আসতে বলেন। এর পরে কিছু শিক্ষার্থী অভিভাবক এনে ফরম পূরণ করেছে। আর বেশ কিছু শিক্ষার্থী তাদের মধ্যে ছাত্রলীগ রয়েছে তারা অভিভাবক নিয়ে আসেনি। তারা অভিভাবক ছাড়াই ফরম পূরণ করতে চায়। এই সুযোগ না দেয়ার ফলেই ছাত্রলীগের উচ্ছৃখল সদস্যরা ওই ঘটনা ঘটনায়।
এই ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীরা কোনো আশ্রয়-প্রশ্রয় পাচ্ছে না। তারা যে অপরাধ করেছে তা শাস্তিরই যোগ্য। শিক্ষক, অভিভাবক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও দেশের মানুষ এই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায়। এজাহারনামীয় বাকি সন্ত্রাসীরা দ্রুত গ্রেফতার হবে, আইনের আওতায় আসবে- এটা সকলেই প্রত্যাশা করছে। সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিই প্রাপ্য।