রাজশাহী-৩ আসনে মহাজোট শরিকের প্রার্থী?

আপডেট: নভেম্বর ৯, ২০১৮, ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

শরিফুল ইসলাম


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহী-৩ পবা-মোহনপুর আসনে আওয়ামী লীগের রযেছে একাধিক হেভিওয়েট প্রার্থী। মনোনয়ন প্রত্যাশি হিসাবে এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে তারা নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে আসছেন। তবে জাতীয় পার্টির সাথে জোটবদ্ধ নির্বাচন হলে এই আসনটিতে মহাজোটের প্রার্থী মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি শাহাবুদ্দিন বাচ্চু মনোনায়ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই আসনে বর্তমান সাংসদ আয়েন উদ্দিনের বিতর্কিত কর্মকা- এবং থানা ও জেলা আওয়ামীলীগের নেতাদের সাথে দীর্ঘদিন থেকে মনোমালিন্য থাকায় মাঠের তৃণমূল নেতা কর্মীরা আয়েনের বিপরীতে অবস্থান করছেন। এই আসনে জাতীয় পার্টির মহানগর সভাপতি শাহাবুদ্দিন বাচ্চু দীর্ঘ দিন থেকে মাঠে কাজ করছেন। তবে সামনে সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সাথে জাতীয় পার্টির জোট হলে এই আসনে বাচ্চুুর মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি রয়েছে বলে জাতীয় পার্টি দাবি করছে।
পবা মোহনপুর আসনে বর্তমান সাংসদ আয়েনের বিপক্ষে রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি রবিউল আলম বাবু, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মর্জিনা পারভীন, বর্তমান নারী সাংসদ আকতার জাহান, সাবেক সাংসদ আওয়ামী লীগ নেতা মেরাজ মোল্লা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অ্যাডভোকেট শরিফুল ইসলাম, পবা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন আলী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল একজোট হয়ে নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা নিজ নিজ ছবি সংবলিত ব্যানার, ফেস্টুন, লিফলেটে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে গ্রামে গ্রামে দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে প্রচারনা চালাচ্ছেন। সম্প্রতি জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মনোনয়ন প্রত্যাশি মর্জিনা পারভীনের পোস্টার ছেড়া এবং পোস্টারের উপর বর্তমান সাংসদ আয়েনের পোস্টার লাগানোর ঘটনায় এলাকায় এবং দলীয় হাইকমান্ড বিব্রত।
এদিকে জাতীয় পার্টির মহানগর সভাপতি শাহাবুদ্দিন বাচ্চু দলীয় সিগনাল পেয়ে নির্বাচনী মাঠে প্রচারনায় নেমে পড়েছেন। এ ব্যাপারে শাহাবুদ্দিন বাচ্চু সোনার দেশকে বলেন, পবা মোহনপুর আসনে এর আগে আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল তবে এককভাবে নির্বাচন করায় কেন্দ্রের নির্দেশে নির্বাচন থেকে সরে যাই। তবে এবার আওয়ামী লীগের সাথে জাতীয় পার্টির জোটগত নির্বাচন হবে। আমাকে কেন্দ্র থেকে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে এবং আওয়ামী লীগ রাজশাহীর এই আসনটি মহাজোটকে ছেড়ে দেয়ার সম্ভাবনা বেশি। সে ক্ষেত্রে এই আসনে আমার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। আমি পুরোদমে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করে দিয়েছি।
এদিকে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন আলী সোনার দেশকে বলেন, বর্তমান সাংসদ আয়েন উদ্দিন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে জামায়াত বিএনপির লোকজনদের সাথে চলাফেরা করা এবং সাংগাঠনিক কার্যক্রম না করাসহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে । তিনি বলেন, বর্তমান সাংসদ জামায়াত-বিএনপির চেয়ারম্যানদের টাকার বিনিময়ে কাজ দেন এবং তাদের কথায় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের মামলা দিয়ে জুলুম নির্যাতন করারও অভিযোগ তুলেন এই নেতা। তিনি আরও বলেন, পবা উপজেলা জামায়াত নেতার স্ত্রী পবা উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করে সরকারি অর্থ লুটপাট করছেন বলেও তিনি বলেন। এ দিকে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মনোনয়ন প্রত্যাশি মর্জিনা পারভিন বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীদের ব্যাপারে বেশি আগ্রহী- সে ক্ষেত্রে এই আসনে আমার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ সোনার দেশকে বলেন, বর্তমান সাংসদ আয়েন উদ্দিন আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা কর্মীদের মূল্যায়ন না করে হাইব্রিডদের কাছে টেনে নিয়ে পবা-মোহনপুরে দলীয় কোন্দল সৃষ্টি করেছেন । নিজের বলয় তৈরি করে লুটপাট করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করেছেন যা কেন্দ্র অবগত আছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা কর্মীরা আমার সাথে আছেন। দল আমাকে মনোনয়ন দিবে বলে তিনি আশাবাদি। এ ব্যাপারে সাংসদ আয়েন উদ্দিন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঢাকায় মিটিং এ আছেন বলে মোবাইল সংযোগ কেটে দেন।