রাণীনগর ইউপি নির্বাচনে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা

আপডেট: অক্টোবর ২৮, ২০১৬, ১১:৩১ অপরাহ্ণ


নওগাঁ প্রতিনিধি
নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ১ নম্বর খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নের তিনটি স্থগিত ভোট কেন্দ্রের এলাকায় ব্যাপক উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। আবারও নির্বাচনের প্রচারণায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন প্রার্থীরা।
গত ২৫ সেপ্টেম্বরে নির্বাচন কমিশন তফশিল ঘোষণা করার পর থেকে আবার এই তিনটি কেন্দ্রে নতুন করে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনের হাওয়া। আবারও চেয়ারম্যান প্রার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের নারী প্রার্থীরা কোমর বেঁধে নেমেছেন নির্বাচনের মাঠে। নতুন করে এই এলাকার ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ভোটের জন্য। ভোটাররা বলছেন, যে প্রার্থীই ভোট চাইতে আসুন না কেন, নৌকার পালে যে হাওয়া লেগেছে তাই আমরা নৌকাকেই নির্বাচিত করবো।
সহিংস ঘটনার কারণে রাণীনগর উপজেলার ১ নম্বর খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নের তিনটি কেন্দ্রে ভোট  স্থগিত করায় এবার ওই তিন কেন্দ্রে ব্যাপক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন।
১ নম্বর খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নে চেয়াম্যান পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন, ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপি’র মো. ফরহাদ হোসেন মন্ডল, নৌকা প্রতীক নিয়ে আ’লীগের মো. আসাদুজ্জামান পিন্টু, আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. মো. আনজীর হোসেন, মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা ও ঘোড়া প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম মাসুদ রানা বিষু। তবে নিবাৃচনী মাঠে পাওয়া যায় নি আনারস ও ঘোড়া প্রতীক প্রার্থীদের। চেয়ারম্যান প্রার্থীরা একে অপরের নির্বাচন কর্মীদের হুমকিদানের অভিযোগ করলেও প্রশাসন বলছে নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য করতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ যাবতীয় প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।
এদিকে এলাকার ভোটারদের মধ্যে সিম্বা গ্রামের আনোয়ার হোসেন, লোহাচুরা গ্রামের ইয়াছিন আলী, রাজাপুর গ্রামের আবু বক্কর, বাবুল হোসেন, দাউদপুর গ্রামের সাফাত হোসেনসহ অনেকেই বলছেন, মাদক ব্যবসায়ী, মাদকসেবী, মাতাল, সুদখোর ও সন্ত্রাসী প্রার্থীদের আমরা কোনোভাবেই ভোট দেব না। এই কারণে আমদের সিদ্ধান্ত যেহেতু সারাদেশে নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে, সে কারণে এই নির্বাচনেও এলাকার উন্নয়ন, শান্তি ও নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা নৌকাকেই বিপুল ভোটের ব্যাবধানে বিজয়ী করবো। সহিংসতার বন্ধঘোষিত খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নের আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসা, সিম্বা ইউনাইটেড উচ্চবিদ্যালয় ও লোহাচুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহণ করা হবে আগামী ৩১ অক্টোবর । এই তিনটি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা রয়েছে ৬ হাজার ২শ ১৪ জন।
নওগাঁ জেলা নির্বাচন অফিসার হুমায়ন কবির বলেন, দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ৫ম ধাপে গত ২৮ মে রাণীনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জেলার অন্য কোন উপজেলার কোন কেন্দ্রে কোন প্রকার সহিংসতা ছাড়াই সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু রাণীনগর উপজেলার ৮টি ইউপিতে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে এই ৩টি ভোট কেন্দ্রে কতিপয় দুর্বৃত্তরা জোরপূর্বক ভোট প্রদান ও ভোট কেন্দ্র দখল করার চেষ্টা করলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এই কেন্দ্রগুলোতে ভোট গ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করেন।