রাসিক ও এলএলসি‘র মধ্যকার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর || বজ্য-আবর্জনা থেকে হবে ডিজেল, জৈব সার-বায়োগ্যাস

আপডেট: ডিসেম্বর ৬, ২০১৮, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


গতকাল রাসিক ও এলএলসি’র মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়-সোনার দেশ

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের এবং যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট টেকনোলজি এলএলসি কোম্পানির মধ্যে বর্জ-আবর্জনা থেকে ডিজেল (জ¦ালানি), জৈব সার ও বায়োগ্যাস তৈরির পাইলট প্রজক্টের সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় নগরভবনের এনেক্স ভবনে এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে স্মারকে স্বাক্ষর করেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও কোম্পানির পক্ষে ওয়েস্ট টেকনোলজি এলএলসি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. মঈন উদ্দিন সরকার। এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হলো।
অনুষ্ঠানে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রস্তাবটি পাওয়ার পর বিশ^াস করাটা কঠিন ছিল যে বর্জ থেকে কীভাবে ডিজেল তৈরি হবে। তবে আলাপ-আলোচনায় বিস্তারিত জানার পর আমরা আশা করছি ড. মঈন উদ্দিনের প্রজেক্টেটি সফল হলে এটি শুধু রাজশাহী নয়, পৃথিবীর মধ্যে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে।
মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, পলিথিন পরিবেশের ভারসাম্যের জন্য ক্ষতিকর। প্রজেক্টটি সফল হলে একদিকে বর্জ্য-আবর্জনামুক্ত নগরী হবে, অন্যদিকে বিভিন্ন প্রোডাক্ট পাবো আমরা। আমি দো‘য়া এটি সফল হোক, সার্থক হোক। প্রজেক্টটি সফল করতে আমার পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা কোম্পানিকে করবো।
ওয়েস্ট টেকনোলজি এলএলসি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. মঈন উদ্দিন সরকার বলেন, আজ একটা শুভযাত্রা শুরু হলো। আমি আশা করছি এই প্রজেক্টটি শুধু বাংলাদেশ বা এশিয়ার মধ্যে নয়, পৃথিবীর মধ্যে পাইওনিয়ার হবে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে এটি দেখতে মানুষ আসবে।
সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর, বর্জ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সরিফুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র ও ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযিম, ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোমিন, ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম পচা, ওয়েস্ট টেকনোলজি লিমিটেড কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আঞ্জুমান শেলী, রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক মামুনুল কেরামত, সাবেক এয়ার কমান্ডার সামাদ আজাদ, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মোমিন, সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজাহার আলী, সচিব রেজাউল করিম, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খায়রুল বাসার, নির্বাহী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) রেয়াজাত হোসেন রিটু প্রমুখ। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন ডলার প্রমুখ। এরআগে দুপুরে মেয়র দপ্তরে উভয়পক্ষের মধ্যে প্রাথমিক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উল্লেখ্য, পাইলট প্রকল্পটির মেয়াদ ধরা হয়েছে আড়াই বছর। চুক্তি অনুযায়ী সিটি কর্পোরেশন ভূমি সুবিধা প্রদান ও বর্জ-আবর্জনা সরবরাহ করবে। আর এলএলসি সব ধরনের আর্থিক ব্যয়ভার বহন করে প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করবে। ওয়েস্ট টেকনোলজি এলএলসি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. মঈন উদ্দিন সরকার বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত কানাডিয়ান নাগরিক। তার প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় যুক্তরাষ্ট্রের ব্রিসপোর্ট সিটি, কানেক্টিকাট।