রিনার সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদে ট্রমায় ভুগেছেন আমির

আপডেট: নভেম্বর ৭, ২০১৮, ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বিবাহবিচ্ছেদের পর পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন আমির-রিনা। এখনো পারিবারিক অনুষ্ঠানে তারা হাজির থাকেন নিয়মিত। এমনকি আমির খানের দ্বিতীয় স্ত্রী কিরণ রাওয়ের সঙ্গেও রিনার সুসম্পর্ক নজরে এসেছে সবার দীর্ঘ অভিনয় জীবনে চলচ্চিত্রের পর্দায় কম নায়িকার সঙ্গে রোমান্স করেননি বলিউডের অন্যতম সফল অভিনেতা আমির খান। হয়তো সে সংখ্যা গুনে বলতে গেলে প্রয়োজন ঢের সময়। কিন্তু বাস্তব জীবনে আমির দুজন নারীকে ভালোবেসেছেন, যা বিয়ে পর্যন্ত গড়িয়েছে, তারা হলেন রিনা দত্ত ও কিরণ রাও। ‘কেয়ামত সে কেয়ামত তাক’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে আসার বহু আগে রিনা দত্তের কাছে নিজের হূদয় উজাড় করে দিয়েছিলেন আমির খান। বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে দীর্ঘ ১৬ বছর এ জুটি সুখে সংসার যাপন করেছেন। কিন্তু হুট করেই ২০০২ সালে বিচ্ছেদ হানা দেয় আমির-রিনার সংসারে।
অবশ্য একই ছাদের নিচে না ফিরলেও বিবাহবিচ্ছেদের পর পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন আমির-রিনা। এখনো পারিবারিক অনুষ্ঠানে তারা হাজির থাকেন নিয়মিত। এমনকি আমির খানের দ্বিতীয় স্ত্রী কিরণ রাওয়ের সঙ্গেও রিনার সুসম্পর্ক নজরে এসেছে সবার। যাহোক, সম্প্রতি পুরনো সেই বিষয় নিয়ে আবার কথা বলেছেন আমির খান। করণ জোহরের চ্যাট শোয়ে হাজির হয়ে আমির প্রকাশ করেছেন, বিবাহবিচ্ছেদ তাদের দুজনের জন্যই বড় আঘাত ও পীড়াদায়ক এক অভিজ্ঞতা ছিল।
‘রিনা ও আমার ১৬ বছরের দাম্পত্য জীবন ছিল। যখন আমাদের বিচ্ছেদ হলো, তখন তা ছিল আমার, তার এবং আমাদের উভয় পরিবারের জন্য এক ক্ষত। এরপর আমরা দুজনই সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি সমাধানে আসার। বিবাহবিচ্ছেদ মানে এই ছিল না যে, রিনার প্রতি আমার শ্রদ্ধা উঠে গেছে অথবা আমার প্রতি রিনার। রিনার কাছ থেকে আমি আমার ভালোবাসা হারিয়েছি। রিনা সত্যিই অসাধারণ মানুষ’Í করণ জোহরের অনুষ্ঠানে বলেন আমির খান।
তিনি আরো বলেন, ‘আমি ভাগ্যবান যে, ১৬ বছর ধরে আমি তার সঙ্গে থাকার সুযোগ পেয়েছি। যা আমাকে সমৃদ্ধ করেছে এবং আমরা উভয়ই উভয়কে গড়ে তুলেছি। যখন আমরা বিয়ে করি, তখন খুবই অল্প বয়স ছিল আমাদের। এজন্য আমি এ বিষয়টিকে মূল্য দিতে চাই এবং আমি গর্বিত যে সে-ও দেয়।’
উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে আমির খান কিরণ রাওকে বিয়ে করেন। এ দম্পতির সংসারে একটি পুত্র সন্তান আছে; নাম আজাদ রাও খান।