‘লাভ জেহাদ’-এর বলি মালদার যুবক, জ্যান্ত পুড়িয়ে মারার ভিডিও ভাইরাল

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০১৭, ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ভিনধর্মে প্রেম বা ‘লাভ জেহাদ’। গোটা দেশ এখন উত্তাল এই দুই শব্দের জেরে। এমতাবস্থায় বিতর্কের আগুন ঘৃতাহুতি করল রাজস্থানের একটি ঘটনা। যেখানে ‘লাভ জেহাদ’-এর অভিযোগ তুলে এক বাঙালি যুবককে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কোপানোর পর জ্যান্ত পুড়িয়ে মারা হল। নৃশংস ঘটনার ভিডিও করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। ঘটনার বীভৎস্যতায় আতঙ্কিত সাধারণ মানুষ। উদ্বেগে রাজস্থান সরকারও। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ওই ভাইরাল ভিডিওর ক্লিপিং সম্প্রচার হতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে তড়িঘড়ি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গুলাবচন্দ কাটারিয়াকে বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করে ঘটনার তদন্ত করার নির্দেশ দেন। মন্ত্রী জানিয়েছেন, পুলিশ দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। মূল অভিযুক্ত শম্ভুলাল রেগারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
গো-রক্ষা, তিন তালাক, পদ্মাবতী ছবির পর দেশে সবচেয়ে বেশি আলোচ্য বিষয় এখন এই লাভ জেহাদ। প্রতিনিয়তই খবরের শিরোনামে কোনও কোনও ঘটনা। লাভ জেহাদের নামে ভিনধর্মের তরুণ-তরুণীকে মারধর, হেনস্তা এখন দৈনন্দিন ব্যাপার। কিন্তু কাউকে এমন নৃশংসভাবে খুনের ঘটনা বোধহয় এই প্রথম। জানা গিয়েছে, রাজসমন্দ জেলার মহম্মদ আফরাজুল নামে এক শ্রমিককে তুলে নিয়ে আসে ওই অভিযুক্ত এবং তার সঙ্গীরা। পশ্চিমবঙ্গের মালদার বাসিন্দা ওই শ্রমিক কর্মসূত্রে রাজস্থানে গিয়েছিলেন। ভিডিওতে দেখা যায়, ঠিকা শ্রমিক আফরাজুলকে প্রথমে তাড়া করে শম্ভুলাল। তারপর তাঁকে দা দিয়ে কোপায় সে। প্রাণভিক্ষা করেও কোনও লাভ হয় না আফরাজুলের। একসময়ে নিস্তেজ হয়ে পড়েন তিনি। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে মাটিতে ফেলে রেখে শম্ভু ভিডিওয় হুমকি দেয়, লাভ জেহাদের পরিণাম এমনই হবে। হুঁশিয়ারি দেয়, কথা না শুনলে এইভাবেই খুন করা হবে। এরপরই আফরাজুলের শরীরে অগ্নিসংযোগ করে শম্ভু।
পুলিশে জানিয়েছে, আফরাজুলকে কাজের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ঘটনাস্থলে নিয়ে আসে শম্ভু। কিন্তু তার উদ্দেশ্য ছিল, খুন করা। ভিডিওয় এক তরুণীর উপস্থিতি জল্পনা বাড়িয়েছে। অনুমান, অভিযুক্তর বোনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল নিহতর। তাই আক্রোশবশত এই খুনের ঘটনা। যদিও লাভ জেহাদের অভিযোগ মানতে নারাজ আফরাজুলের পরিবারের। মালদায় তাঁর গ্রামে শোকের ছায়া। ঘটনা এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না গ্রামবাসীরা। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আধপোড়া দেহ এবং একটি দা ও স্কুটার উদ্ধার করেছে। মোবাইল থেকে যে ভিডিও করছিল সেই ব্যক্তির খোঁজে পুলিশ।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন