শিক্ষামন্ত্রীর অসুস্থতা || রাবির দশম সমাবর্তন আবারো স্থগিত

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৮, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

রাবি প্রতিবেদক


শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদের অসুস্থতার কারণে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) আগামী ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য দশম সমাবর্তন স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এর আগে ২০১৬ সালে প্রশাসনিক জটিলতায় দশম সমাবর্তনটি স্থগিত হয়ে গিয়েছিল।
এদিকে রাষ্ট্রপতির পরিবর্তে শিক্ষামন্ত্রীর হাত থেকে সনদ নিতে অনেক আগে থেকেই সমাবর্তন স্থগিতের দাবি জানিয়ে আসছিলেন সমাবর্তনে নিবন্ধনকারী গ্র্যাজুয়েটরা। ১১ দিন আগে হঠাৎ করে স্থগিতের এ সিদ্ধান্তে ভোগান্তিতেও পড়েছেন অনেকে।
স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করে অধ্যাপক প্রভাষ কুমার বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের দশম সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ সভাপতিত্ব করবেন বলে নির্ধারিত ছিলো। কিন্তু তিনি অসুস্থতার কারণে সমাবর্তনে উপস্থিত হতে পারবেন না বলে আমাদের জানিয়েছেন। বুধবার তিনি চোখে জরুরি অপারেশন করবেন। অসুস্থতার কারণে শিক্ষামন্ত্রী সমাবর্তনে উপস্থিতির বিষয়ে অপারগতা জানালে আজ (মঙ্গলবার) সকালে প্ল্যানিং কমিটির জরুরি সভা ডাকা হয়। সভায় উপস্থিত সকলের সর্বসম্মতিক্রমে দশম সমাবর্তন সাময়িকভাবে স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’ পরবর্তীতে রাষ্ট্রপতির দফতরে যোগাযোগ করে তার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সমাবর্তনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে বলে তিনি জানান।
সমাবর্তনে নিবন্ধনকারী সফিকুল ইসলাম নামের একজন গ্র্যাজুয়েট বলেন, আমাদের স্বপ্নকে বার বার ভেঙে দেয়া হচ্ছে। এটা মেনে নেয়া যায় না। আগামী ২৪ তারিখ সমাবর্তনে অংশগ্রহণের জন্য অনেকের অফিসে ছুটি নেয়া হয়ে গেছে। আবার অনেকে ট্রেনের টিকিটও কেটেছেন। তাদেরকে ভোগান্তিতে পড়তে হবে।
অনুষ্ঠিতব্য সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের পরিবর্তে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদের হাত থেকে সনদ নিতে অসম্মতি জানায় গ্র্যাজুয়েটরা। শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিনিধিত্ব করাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি গ্র্যাজুয়েটদের একটি প্রতিনিধিদল রাষ্ট্রপতিবিহীন সমাবর্তন আয়োজন না করার সিদ্ধান্তে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি দিতে যায়। তবে উপাচার্য তা গ্রহণ করেন নি। গ্র্যাজুয়েটদের অসম্মতি থাকলেও সমাবর্তন আয়োজন প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে সমাবর্তনের বক্তা হিসেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজউদ্দীনকে নির্ধারণ করা হয়।
এর আগে ২০১৬ সালের ২৪ ডিসেম্বরে দশম সমাবর্তনের আয়োজন করে সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। কিন্তু প্রশাসনিক জটিলতায় তখন বন্ধ হয়ে যায় এই সমাবর্তনের কার্যক্রম। এরপর ২০১৭ সালের মে মাসে বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক আবদুস সোবহান দায়িত্ব নেবার পর চলতি বছর ২৪ মার্চ নির্ধারিত হয় সমাবর্তনের তারিখ।