শিক্ষার্থী মিমের পড়াশোনার দায়িত্ব নিলেন ইউএনও

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৮, ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ

মান্দা প্রতিনিধি


মান্দায় মিমের সঙ্গে ইউএনও খন্দকার মুশফিকুর রহমান-সোনার দেশ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের শিক্ষার্থী শারমিন আক্তার মিমের পড়াশোনার যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছেন মান্দা উপজেলা প্রশাসন। ‘অর্থের অভাবে বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে মিমের বাড়িতে অবস্থান’ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশের পর গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে তার বাড়িতে হাজির হন ইউএনও খন্দকার মুশফিকুর রহমান।
ইউএনও খন্দকার মুশফিকুর রহমান এসময় মিমের বাবা জামাল হোসেন ও মা মোরশেদা খাতুনের সঙ্গে এ বিষয়ে মতবিনিময় করেন। তিনি মিমকে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। ইউএনও বলেন, অর্থের অভাবে মেধাবী শিক্ষার্থীর লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাবে এটা হতে পারে না। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মিমের লেখাপড়া যাবতীয় খরচ বহন করা হবে বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে মিমের পরিবারকে।
এসময় উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা তারিক এলাহী, মান্দা প্রেসক্লাব সভাপতি নজরুল ইসলামসহ স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মিরা ইউএনও’র সঙ্গে ছিলেন।
মেধাবী শিক্ষার্থী শারমিন আক্তার মিম নওগাঁর মান্দা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ঘাটকৈর গ্রামের রিকশা চালক জামাল হোসেন ও গৃহিণী মা মোরশেদা খাতুনের বড় মেয়ে। এ দম্পতির ছোটমেয়ে শাহারা আফরিন মান্দা এসসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।
উল্লেখ্য, অর্থের অভাবে বাড়িতে বসে বসেই সময় কাটছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের ছাত্রী শারমিন আক্তার মিমের। পড়াশোনার খরচ যোগাতে না পারায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে পরিবারের সঙ্গেই গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন। রিকশা চালক বাবার পক্ষে তার পড়াশোনার খবর যোগানো সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় সম্ভাবনাময় একটি স্বপ্ন অকালে ঝরে যেতে বসেছে। এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ বিভিন্ন দৈনিকে প্রকাশের পর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ উদ্যোগ নেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ