শিবগঞ্জের দুর্লভপুরে পেট্রোল বোমার আগুনে ৪টি ঘর পুড়ে গেছে

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৮, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি


পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপে একটি বাড়ির ৪টি ঘর পুড়ে ভষ্মিভুত হয়েছে। সঙ্গে ৬টি ছাগল ও বাড়ির আসবাবপত্রসহ পুড়ে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ২লাখ ৫০হাজার টাকার। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়নের ৫ কাঠা গ্রামের ইয়াসিন আলির ছেলে আবদুুল মালেকের বাড়িতে ।
সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসীর কথা বলে জানা গেছে, গত সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে ঘরে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় বাড়ির গৃহিণী রোকসানা বেগম পার্শ্বের ঘর থেকে ছাগলের ডাক শুনে জেগে উঠে দেখে বাড়িতে আগুন। এ সময় তার চিৎকারে আশেপাশের মানুষ আসার আগেই ৪টি ঘর পুড়ে ভষ্মিভুত হয়। এসময় ঘরের ভিতরে থাকা ৬টি ছাগল, শয়ন ঘরের আসবাবপত্রসহ সবকিছুই পুড়ে যায়। এতে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় আড়াই লাখ টাকা। এলাকার বাদল, কাইয়ুম, রফিক, রেজাউল, মোশারফসহ অনেকেই জানান পদ্মা নদী ভাঙনের কারণে নিজ জমি নদী গর্ভে বিলীন হওয়া যাওয়ায় মাত্র ৩ বছর আগে নানার জমিতে আবদুল মালেক বাড়ি করে। পেটের দায়ে সে ঢাকায় রিকশা চালায়। মাঝে মাঝে সে বাড়ি আসে। বর্তমানে সে ঢাকায় আছে। এলাকাবাসীর ধারণা ৬ মাস আগে একই গ্রামের নিজাম উদ্দিনের ছেলে সাব্বির আলির সঙ্গে মালেকের মেয়ে শারমিনের প্রেমের বিয়ে হয়েছিল। ৪ মাস পর তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। তার জের ধরেই সাব্বির এ অগ্নিকা- ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আবদুুল মালেকের মেয়ে শারমিন খাতুন জানান, সাব্বিরের সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্কে বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু তার নেশার টাকা আমার আব্বার কাছ থেকে নিয়ে দিতে না পারায় সে আমার উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো। যদিও এর অগে যৌতুক হিসেবে দুই কিস্তিতে ২৬ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। তার নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আমি বাধ্য হয়ে তালাক নিয়েছি। তালাকের পর সে একাধিকবার মোবাইলের মাধ্যমে আমাকে হুমকী দিয়েছে। আমার ধারণা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সাব্বিরই আমাদের ঘরে আগুন দিয়েছ্।ে আমি তার বিচার চাই।
তবে সাব্বির এ সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কোনো দিন কোন নেশার সঙ্গে জড়িত ছিলাম না। এমনকি আমি শারমিনের উপর কোন নির্যাতন করিনি। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ড সদস্য ফারুক বলেন ঘটনাটি আমার অজানা। এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার ডিউডি অফিসার জানান এখনো কেউ থানায় কোনো অভিযোগ বা জিডি করতে আসেনি। আসলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।