শিবগঞ্জে মাদকের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯, ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি


সোর্সের প্ররোচনায় বিজিবির সদস্যরা মাসুদ রানা ও তার বড় ভাই দুরুল হোদাকে মাদক সংক্রান্ত মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে চরম হয়রানী করছে বলে সংবাদ সম্মেলন করেছে মাসুদ রানার স্ত্রী সুমাইয়া বেগম।
সুমাইয়া বেগম ও তার পরিবারের সদস্যরা ১০ সেপ্টেম্বর রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বিজিবির সোর্স নাতে খ্যাত উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের কামাত গ্রামের আসকর আলীর ছেলে নাইমুল ইসলাম, আলকেশের ছেলে ডলার, খোন্দা গ্রামের সাত্তারের ছেলে বাবু গত ৯ সেপ্টেম্বর রাত ৩ টার সময় কয়েকজন বিজিবির সদস্যকে সঙ্গে নিয়ে আমাদের বাড়ির সামনে থেকে ডাক দিলে আমার শ^শুর খোকা মিয়া বাড়ির গেট খোলা মাত্রই নাইমুল, বাবু ও ডলার আমার ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে আমার স্বামী মাসুদ রানা ও আমার মানসিক প্রতিবন্ধী ভাসুর দুরুল হোদাকে মারপিট করে টেনে হেঁচড়ে বের করে নিয়ে এসে বাইরে অবস্থান করা বিজিবির হাতে তুলে দেয়।
এ সময় আমি ও আমার শাশুড়ী প্রতিবাদ করলে সোর্সরা আমরা দুজনকে মারপিট করে এবং পরনের কাপড় ধরে টানা হেচঁড়া করে এবং আমার গলায় থাকা এক ভরি ওজনের মালা ও কানে থাকা বালা ছিনিয়ে নেয় এবং আমার শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। শুধু তাই নয় আমার শাশুড়ী আমেনা বেগমকেও মারপিট করে।
এ সময় আমার অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনরা এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারপিট করে এবং গুলি করার হুমকী দেয়। সুমাইয়া বেগম তার লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, যে তাদেরকে ধরে নেয়ার যাওয়ার সময় তাদের কাছে কিছু না পেলেও পরে জানতে পারি যে বিজিবি সদস্যরা ১৯৫ পিস ইয়াবা ও ১শ গ্রাম হেরোইনসহ খোন্দা মাস্তান বাজারে আটক দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। যা সম্পূর্ন মিথ্যা ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক। আমার স্বামী মাসুদ রানা ও ভাসুর দুরুল হোদা কোনদিনই মাদকসহ কোন ধরনের অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলনা এখনো নেই। আমার স্বামী রাজমিস্ত্রীর কাজ করে কোন রকমে সংসার চালায়। বরং নাইমুল, ডলার ও বাবুই সোর্সের পরিচয় দিয়ে দেদারসে মাদকের ব্যবসা করে আসছে এবং তাদের এ অবৈধ ব্যবসার প্রতিবাদ করায় ষড়যন্ত্রমূলকভাকে আমার স্বামী ও মানসিক প্রতিবন্ধী ভাসুর দুরুল হোদাকে ধরিয়েছে। তাই আমি মিডিয়ার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি । ঘটনাটি সঠিক তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে আমার স্বামী মাসুদ রানা ও মানসিক প্রতিবন্ধী ভাসুর দুরুল হোদার মুক্তি দাবি করছি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সুমাইয়া শাশুড়ী আমেনা বেগম, শ^শুর খোকা মিয়া, প্রতিবেশী ইব্রাহিম, আজমুল হক, চাচাতো ভাই আতাউর রহমান, মামাতো ভাই তোরিকুল ইসলামসহ আরো কয়েকজন। তারাও ঘটনাটিকে মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে দাবি করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ