শীতে কাঁপছে তানোরের শ্রমজীবী মানুষ

আপডেট: ডিসেম্বর ২১, ২০১৭, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

তানোর প্রতিনিধি


উত্তরের শীতল বায়ু প্রবাহ অব্যাহত থাকায় পৌষের প্রথমে শীতের দাপটে কাতর হয়ে পড়েছে জেলার তানোর উপজেলার শ্রমজীবী মানুষ। ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়েছে বরেন্দ্র অঞ্চলের এই জনপদের পথ-ঘাট। বিশেষ করে গতকাল বুধবার ভোর থেকে ঘন কুয়াশার কারণে আশপাশের কিছুই দেখা যাচ্ছিল না। বেড়েছে শীতের তীব্রতা। গত দুইদিনে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সূর্যের দেখা না দেয়ায় হাড় কাঁপানো শীতে কাবু হয়ে পড়ছেন পুরো উপজেলার শ্রমজীবী মানুষগুলো।
শীতের তীব্রতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুরানো কাপড়ের দোকানগুলোতে মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। দামও বেশি নিচ্ছে দোকানদাররা। শীতের কারণে স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যহত হয়েছে। মানুষের পাশাপাশি শীতের কবলে পড়েছে গবাদিপশু। বোরো বীজতলা ও রবিশস্যের এই ঘন কুয়াশায় ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।
এ নিয়ে তানোর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, এমন ঘন কুয়াশা অব্যাহত থাকলে বোরো বীজতলা ও রবি ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বিশেষ করে বোরোতে কোল্ড ইনজুরি ও আলুতে লেটবল্টাইট (পচন) দেখা দিতে পারে।
তানোর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহা. শওকাত আলী বলেন, লোকজন তীব্র ঠান্ডার মধ্যে আছে। সরকারিভাবে ২৫০০টি কম্বল বরাদ্ধ এসেছে। শ্রমজীবী মানুষ এই শীতে কাতর ভেবে ইতোমধ্যেই ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে কম্বল পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আমরাও কম্বল বিতরণ শুরু করেছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ