সস্তা জনপ্রিয়তার লোভে পড়ল সার্নও!

আপডেট: এপ্রিল ১২, ২০১৮, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


‘সার্ন’ থেকে একটি খবর দেওয়া হয়েছিল গত ১ এপ্রিল। খবরটি ছিল, একটি নতুন মৌলিক কণা (ফান্ডামেন্টাল পার্টিকল)-র এই প্রথম হদিশ মিলেছে জেনিভার অদূরে সার্ন’-এর ভূগর্ভস্থ গবেষণাগার ‘লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডার’-এর এলএইচসি-বি ডিটেক্টরে। যে মৌল কণাটির ভর দু’টি প্রোটনের (পরমাণুর নিউক্সিয়াসে থাকা ধনাত্মক আধানের কণা) ভরের সমান।
ওই কণাটির অত্যন্ত স্বল্পায়ু ও চেহারা (ডিমের মতো) দেখে বিজ্ঞানীরা তার নাম দিয়েছিলেন ‘হাম্পটি ডাম্পটি কণা’। বিজ্ঞানীরা যে একেবারেই ‘শুষ্কং কাষ্ঠং’ নন, তা প্রমাণ করতেই ওই মৌল কণাটির অমন নামকরণ করা হয়েছিল।
লুইস ক্যারলের লেখা বই ‘থ্রু দ্য লুকিং-গ্লাস, অ্যান্ড হোয়াট অ্যালিস ফাউন্ড দেয়ার’-এর একটি অন্যতম চরিত্র এই ‘হাম্পটি ডাম্পটি’। সেই ‘হাম্পটি ডাম্পটি’ চরিত্রের মতোই এই ক্ষণস্থায়ী মৌল কণাও খুব অল্প সময়ের মধ্যেই (এক সেকেন্ডের ১০ লক্ষ ভাগের এক ভাগ) দু’টি ফোটন কণায় ভেঙে গিয়ে বিলীন হয়ে যায়।
আমার মতো যাঁরা দীর্ঘ দিন ডুবে রয়েছি কণাপদার্থ বিজ্ঞানের গবেষণায়, তাঁদের কাছে তো এটা খুবই চিত্তাকর্ষক আবিষ্কার। তাই না? কারণ, ৪০ বছর আগে ওই কণার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অত্যন্ত ক্ষণস্থায়ী বলে সেই কণার হদিশ মেলেনি এত দিন। বিশিষ্ট কণাপদার্থ বিজ্ঞানী অধ্যাপক বিকাশ সিংহের সেই আক্ষেপ ঝরে পড়ল তাঁর হাতে লেখা চিঠিতে
এ বার ই-মেলে ‘সার্ন’ সেই কণা আবিষ্কারের ‘ঘোষণা’ করায় স্বাভাবিক ভাবেই রোমাঞ্চিত হয়েছিলাম। কিন্তু পরে জানলাম, বাস্তবে তা হয়নি। এটা একটা বড় মাপের ‘এপ্রিল ফুল’। মজা! সবটাই একটা ঠাট্টা! কিন্তু সেটা এমন ভাবে সাজিয়ে ‘খবর’ হিসাবে ‘সার্ন’ পরিবেশন করেছে যে, তা চট করে বোঝার উপায় নেই। ‘সার্ন’-এর গবেষণার সঙ্গে আমি দীর্ঘ দিন ধরে জড়িত। পরিচিত। কোনও দিন কোনও আবিষ্কারের খবর নিয়ে ‘সার্ন’কে ই-মেল করে এই ধরনের ঠাট্টা-মস্করা করতে আমি অন্তত দেখিনি। ‘সার্ন’ অতীতে এমন মজা-টজা করেছে বলেও শুনিনি কোনও দিন।(যে খবরের ভিত্তিতে অধ্যাপক বিকাশ সিংহের এই লেখা, নীচের প্রথম লিঙ্কে থাকল সেই খবরটিও.. হাম্পটি ডাম্পটি! নতুন কণা আবিষ্কার…)
এত দিন ধরে নিজেদের স্বভাবগাম্ভীর্য বজায় রেখে চলে ‘সার্ন’ হঠাৎ এই ভাবে একটি বহুকাঙ্খিত আবিষ্কারের খবর নিয়ে এমন ঠাট্টা-মস্করা করতে গেল কেন? উদ্দেশ্য কি শুধুই কয়েক জন সাধারণ মানুষকে বোকা বানানো? তাতে কী লাভ? ‘সার্ন’-এর মতো একটি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গবেষণাকেন্দ্রের পক্ষে দিন-রাতের হাজারো ব্যস্ততার মধ্যে এমন ঠাট্টা-রসিকতা কি মানানসই? তাও আবার বহুকাঙ্খিত একটি আবিষ্কারের খবর নিয়ে! এতে কি নিজেকেই খেলো প্রতিপন্ন করল না ‘সার্ন’? এমন কাজ তো ‘নাসা’, ‘ইসরো’ বা ‘ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি’ (ইএসএ বা ‘এসা’)-র মতো আন্তর্জাতিক মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলিকে কখনও করতে হয়নি, সস্তা জনপ্রিয়তা অর্জনের জন্য! তাঁরা তাঁদের কাজকর্ম দিয়েই বিশ্বে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। ঠাট্টা-মস্করা করে সস্তায় বাজিমাত করার লোভ ওই সংগঠনগুলি বরাবরই সম্বরণ করে চলেছে।

Don`t copy text!