সাপাহারে সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনায় গ্রেফতার পাঁচ

আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০১৮, ১২:৫০ পূর্বাহ্ণ

নওগাঁ প্রতিনিধি


সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে নওগাঁর সাপাহারে দুই সাংবাদিক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ গত বুধবার বিকেলে সাপাহার থানায় এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজ টেলিভিশনের নওগাঁ প্রতিনিধি এএসএম রায়হান আলম বাদী হয়ে পাঁচজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। মামলার পর সন্ধ্যায় উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের আটক করা হয়।
আটকরা হলেন, উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের বাবলু রহমানের ছেলে নূর আলম (২৫), অরুনপাড়া গ্রামের মৃত আবু তাহের সরদারের ছেলে আবু তালেব (৩৮), গোডাউনপাড়া গ্রামের মৃত আবদুস সাত্তার মন্ডলের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫), ইয়াকুব আলীর ছেলে মোখলেছুর রহমান (৩২) এবং আনিছুর রহমানের ছেলে রুহুল আমিন (৩৫)।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাপহার সদরের জিরোপয়েন্ট এলাকায় ক্রয়সূত্রে পাওয়া ৪ শতক জমি গিয়াস উদ্দিন নামে এক ব্যক্তি ১৯৮৪ সালে বিপণিবিতান নির্মাণ করে। যা গিয়াস মার্কেট নামে পরিচিত। গিয়াস মারা যাওয়ার পর তার ওয়ারিশরা দীর্ঘদিন ধরে ওই মার্কেট ভাড়া দিয়ে ভোগদখল করে আসছিলেন। গত সোমবার সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাজাহান আলীর নেতৃত্বে কিছু লোকজন ওই বিপণিবিতানের ভাড়াটিয়াদের বের করে দিয়ে তালা দিয়ে দখলে নেন। এ ঘটনায় ওই বিপণিবিতানের মালিক মৃত গিয়াস উদ্দিনের স্ত্রী হাজেরা বেগম নওগাঁর সাপাহার সহকারী সিনিয়র জজ আদালতে মামলা করেন।
অভিযোগের সূত্রে ধরে গত বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থলে তথ্য সংগ্রহ করতে যান বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের প্রতিনিধি ও নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি কায়েস উদ্দীন এবং এটিএন বাংলা ও এটিএন টেলিভিশনের নওগাঁ প্রতিনিধি এএসএম রায়হান আলম। তথ্য সংগ্রহের সময় দখলদার সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পক্ষের ৭-৮ জন লোক ওই দুই সাংবাদিককে মারপিট করে। পরে স্থানীয় ও থানা পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে।
এ বিষয়ে সাপাহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুল আলম শাহ্ বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মামলার পর আসামিদের আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাদের আদালতের মাধ্যমে নওগাঁ জেল হাজতে পাঠানো হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ