সিরাজগঞ্জ থেকে কে পাচ্ছেন মন্ত্রিসভায় স্থান?

আপডেট: জানুয়ারি ৪, ২০১৯, ১১:৩৬ অপরাহ্ণ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি


(ছবিতে বাম থেকে) মোহাম্মদ নাসিম, ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না, ডা. আবদুল আজিজ, তানভীর ইমাম, আবদুল লতিফ বিশ্বাস, হাসিবুর রহমান স্বপন, মোমিন মন্ডল-সোনার দেশ

আগামী ৭ জানুয়ারি মহাজোট সরকারের নতুন মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার সিরাজগঞ্জ রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিকভাবে দেশের মধ্যে একটি বিশেষ জায়গা দখল করে আছে। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত প্রতিটি গণত্রান্ত্রিক আন্দোলনে সিরাজগঞ্জের ভূমিকা ছিলো গুরুত্বপূর্ণ। এই সিরাজগঞ্জে জন্মগ্রহণ করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতা জাতীয়ভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন। নতুন মন্ত্রীসভায় সিরাজগঞ্জ থেকে একাধিক জননেতা মন্ত্রীত্ব পাবেন এটাই সিরাজঞ্জবারি দাবি। সিরাজগঞ্জ-১ (কাজিপুর ও সদরের আংশিক) আসন থেকে ১৪ দলের সমন্ময়ক ও আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী রুমানা মোর্শেদ কনকচাঁপাকে প্রায় ৩ লাখ ২৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। মোহাম্মদ নাসিম জাতীয় নেতা শহীদ মনসুর আলীর সুযোগ্য সন্তান। ৯৬ আওয়ামীলীগের সরকারের সময়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রি হিসেবে দায়িত্ব পেয়ে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে সারা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন। ২০১৪ সালের মহাজোট সরকারের সময়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়ে দক্ষতার সঙ্গে ৫ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন। বিরোধী দলের থ্কাা সময়ে একাধিক বার নির্যাতিত হয়েছেন জেল খেটেছেন। তিনি দলের একজন পরিক্ষিত নেতা হিসেবে এবারও ভালো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাবেন এটা সিরাজগঞ্জের সকলস্তরের মানুষ বিশ্বাস করে।
সিরাজগঞ্জ-২ (সদর ও কামারখন্দ) আসন থেকে এবার মহাজোট মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছেন জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না। বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ রোমানা মাহমুদকে ২ লাখ ৮১হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে এই আসনের রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। এই আসনটি এক সময় বিএনপির ঘাটি হিসেবে চিহ্নিত ছিলো। ২০০৮ সালের নির্বাচনে সারাদেশে নৌকার জোয়ারের সময়ও এই আসনে বিএনপি প্রার্থী রোমানা মাহমুদ বিজয়ী হন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে ডা. মুন্না এই আসন থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তিনি আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনগুলিতে সন্মেলনের মাধ্যমে দলীয় নেতাকর্মীদের উজ্জিবীত করে তোলেন। ওয়ার্ড পর্যায় থেকে ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচিত করেন। যা দেশের মধ্যে মডেল হিসেবে পরিনত হয়। ওয়ার্ড থেকে জেলা পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে নেতাকর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তুলে দলকে শক্তিশালী পর্যায়ে নিয়ে আসেন। সেই সঙ্গে প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করে জনগণের মধ্যে শক্ত অবস্থান তৈরি করেন। পাশাপাশি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া আকস্মিকভাবে মৃত্যুবরণ করার পর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জেলা আওয়ামীলীগের দায়িত্ব পান। এরপর থেকে জেলা পর্যায়ে দলকে সংগঠিত করে পৌরসভা, ্ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, জেলা পরিষদ নির্বাচনে নিরঙ্কুস সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় আওয়ামীলীগ। জেলার প্রতিটি উপজেলা দলকে সংগঠিত করতে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। তার ফলে পুরো জেলা জুড়ে নেতাকর্মীদের কাছে জনপ্রিয় নেতা হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেন। পাশপাশি সাহসী ও সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবে সকলের ভালোবাসায় সিক্ত হন। জননেত্রী শেখ হাসিনার স্নেহধন্য এই তরুণ নেতা এবার মন্ত্রিত্ব পাচ্ছেন এই আলোচনা জেলা জুড়েই চলছে।
সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ) আসন থেকে প্রথমবারের মত নির্বাচিত হয়েছেন ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক ও স্বাচিপ নেতা ডা. আবদুল আজিজ। তিনিও ২ লাখ ৬৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিএনপির তিন বারের সাংসদ আবদুল মান্নান তালুকদারকে পরাজিত করেছেন। অল্পদিনেই ডা. আজিজ নেতা-কর্মীদের মন জয় করে নিয়েছেন। তিনিও মন্ত্রীত্ব পেতে পারেন এমন আলোচনা চললেও রাজনীতিতে নতুন হিসেবে এবার মন্ত্রিত্ব নাও পেতে পারেন এমন আলোচনাও রয়েছে।
সিরাজগঞ্জ -৫ (বেলকুচি ও চৌহালী ) আসন থেকে ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলীমকে ২ লাখ ৩১ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মন্ডল গ্রুপের এমডি ও বর্তমান সাংসদ মজিদ মন্ডলের ছেলে মোমিন মন্ডল। রাজনীতিতে নতুন হলেও তাঁত সমৃদ্ধ এই আসনে ভোটারদের মন জয় করতে পেরেছেন সহজেই। তার খোলামেলা ও সহজ সরল বক্তব্যের অনেকেই প্রসংশা করে থাকেন। নবীন হিসেবে তিনি এবার মন্ত্রিত্ব পাবেন না এমনটাই মনে করে এলাকাবাসী।
সিরাজগঞ্জ-৪ (উল্লাপাড়া) আসন থেকে দ্বিতীয় বারের মত নির্বাচিত হয়েছেন উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহব্বায়ক তানভীর ইমাম। ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকায় প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করেছেন। দলকে তৃণমুল থেকে শক্তিশালী করেছেন। জামায়াত-শিবিরের ঘাটি হিসেবে পরিচিত উল্লাপাড়ায় তার নেতৃত্বে পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করেছেন। জামায়াতের শক্তিশালী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম খানকে প্রায় ২ লাখ ৭৯ হাজার ভোটের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করে চমক সৃষ্টি করেছেন। তার বাবা এইচটি ইমাম এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিশাল বিজয়ের পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তাই দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা সব দিক বিবেচনা করে তানভীর ইম্মাকে মন্ত্রিত্ব দিবেন এটাই প্রত্যাশা করছেন এলাকাবাসী।
তবে সিরাজগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য, সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রি, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ বিশ্বাস মন্ত্রিত্ব পেতে পারেন এমন আলোচনা আছে জেলা জুড়ে। বেলকুচির রাজনীতিতে লৌহমানব বলা হয় লতিফ বিশ্বাসকে। এবারও নমিনেশনের জোর দাবিদার ছিলেন তিনি। কিন্তু দল থেকে মোমিন মন্ডলকে নমিনেশন দেয়া হয়। তার পরেও জেলার প্রতিটি আসনে মহাজোট প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ার জন্য তার নেতৃত্বে জেলা আওয়ামীলীগ ব্যাপক প্রচেষ্টা চালায়। এই অভাবনীয় ফলাফলে দলীয় প্রধান খুশি হয়ে তাকে পুনরায় মন্ত্রিসভায় স্থান দিবেন এমন আশা তার সমর্থকদের।
সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসন থেকে বিএনপির শক্তিশালী প্রার্থী ডা. এমএ মুহিতকে ৩ লাখ ২১ হাজার ভোটের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করে তৃতীয় বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাসিবুর রহমান স্বপন। হাসিবুর রহমান স্বপন এবার ৩ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫৯ ভোট পেয়ে উত্তরবঙ্গে সবচেয়ে বেশী ভোটের রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। স্বপন ৯৬ আওয়ামীলীগ সরকারের সময় শিল্প উপমন্ত্রি হিসেবে কিছুদিন দায়িত্ব পালন করেছিলেন। শাহজাদপুরের রাজনীতিতে স্বপনকে চাম্পিয়ন খেলোড়ার হিসেবে সকল চেনে। দলীয় নেতা-কর্মী ছাড়াও তার নিজস্ব একটা ভোট ব্যাংক আছে। গত ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর থেকে তৃণমুল থেকে দলকে সংগঠিত করেন। যার ফলে উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীরা বিজয়ী হয়। তার সময়ে শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ ব্যপক উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের স্নেহভাজন হাসিবুর রহমান স্বপন এবারের মন্ত্রিসভায় ঠাই পাচ্ছেন এমন বিশ্বাস দলীয় নেতাকর্মীদের।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ