‘স্নেইক ডান্স’ উদযাপনের কারণ জানালেন মুশফিক

আপডেট: মার্চ ১৩, ২০১৮, ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় এখনও থামেনি। ম্যাচ শেষে তামিম ইকবাল যদিও বলেছেন, এরপরও সিরিজ কাভার করতে আসা অন্য দেশের সংবাদকর্মীদের কৌতুহল কমেনি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর মুশফিকুর রহিমের উদযাপনের পেছনের গল্প কি? তবে কৌতুহলের উত্তুঙ্গ শিখায় জল ঢেলে দিলেন মুশফিক। জানালেন, কাউকে উদ্দেশ্য করে নয় বা পূর্ব পরিকল্পিত নয় অমন উদযাপন।
দুই হাত উঁচিয়ে কণ্ঠের সবটা জোর দিয়ে হুংকার তো ছিলই, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর মুশফিকের উদযাপনে ছিল আরও কিছু। জয় এনে দেওয়া সিঙ্গেলটির পর ব্যাট ফেলে দুই হাত মাথার ওপর তুলে সাপের পর ফণা তুলে ছোবল দেওয়া ভঙ্গি করেন তিনি।
এরপর থেকেই সেই উদযাপন নিয়ে চলছে আলোচনার ঝড়। ম্যাচের পর অনেকটা সময় পেরিয়ে গেলেও থামেনি কৌতুহলের স্রোত। ম্যাচের পর সোমবারই প্রথম সংবাদমাধ্যমের সামনে এলেন মুশফিক। শোনালেন উদযাপনের গল্প।
“কিছুই না। স্রেফ সাধারণ একটা উদযাপন। হয়ত সবার ভালো লেগেছে। এজন্য আলোচনা হচ্ছে। দল জিতেছে, এটাই সবচেয়ে বড় কথা। পরিকল্পনা করে করিনি। পূর্ব পরিকল্পিত কিছু ছিল না। এটায় আসলে ফুটে ওঠে একটা জয় আমরা কতটা তীব্রভাবে চাইছিলাম।” মুশফিকের দাবি, জয়টা বহু আকাঙ্ক্ষিত ছিল বলেই তাৎক্ষনিক ভালোলাগার স্ফুরণ ছিল অমন উদযাপন। “লোকে তো শুধু ম্যাচের ফলটাই দেখে। অনুশীলনের কঠির পরিশ্রম দেখে না। গত কয়েক মাস হয়ত আমরা খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম। কিন্তু আমরা যে কত কষ্ট করছিলাম, এটা আমরা জানি। তো এত কষ্টের পর ফলটা যখন পাওয়া যায়, অবশ্যই খুব ভালো লাগে।” শনিবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে তামিম ইকবাল বলেছিলেন, উদযাপনটা হতে পারে নাজমুল ইসলাম অপুকে দেখানোর জন্য। নাজমুল অপুর সৌজন্যে এই উদযাপন বাংলাদেশের ক্রিকেটে বেশ চেনা। বিপিএলে এই বাঁহাতি স্পিনারের এমন উদযাপন নিয়মিতই দেখা যায়। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কেবলই শুরু হয়েছে তার পথচলা। অভিষেক টি-টোয়েন্টিতে মিরপুরে কিছুটা দেখিয়েছিলেন এই উদযাপন। তবে বাংলাদেশের বাইরে এখনও এটি সেভাবে দেখানোর সুযোগ পাননি। যেটি এখন ক্রিকেট বিশ্ব জুড়ে আলোচনায় মুশফিকের সৌজন্যে।
মুশফিকের কাছ থেকে পাওয়া উদযাপনের আনুষ্ঠানিক কারণের বাইরে আরেকটি গল্পের গুঞ্জনও ডালপালা মেলছে। দুই দলের সবশেষ সিরিজে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে একটি উইকেট পাওয়ার পর এই উদযাপন করেছিলেন শ্রীলঙ্কার দানুশকা গুনাথিলাকা। বাংলাদেশ দলের অনেকের ধারণা, অপুকে উদ্দেশ্য করেই অমনটা করেছিলেন গুনাথিলাকা। ধারণা করা হচ্ছে, মুশফিকের উদযাপন ছিল সেটিরই এক মধুর জবাব।