স্বামীর জামিনের শুনানিতে কাঁদলেন কণ্ঠশিল্পী মিলা

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৭, ১:২৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


যৌতুকের দাবিতে মারধরের মামলায় স্বামী পারভেজ সানজারির জামিন আবেদনের শুনানিতে এজলাসে দাঁড়িয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন কণ্ঠশিল্পী মিলা ইসলাম।
সোমবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লার আদালতে সানজারির করা জামিনের আবেদনের ওপর শুনানি হয়। জামিনের বিরোধিতায় এজলাসে উঠে স্বামীর নির‌্যাতনের বর্ণনা দেওয়ার সময় কেঁদে ফেলেন মিলা।
গত ২৫ অক্টোবর সানজারিকে অন্তর্বতী জামিন দিয়েছিলেন একই বিচারক। সোমবার মেয়াদ শেষ হলে আইনজীবী কাজী নজিবুল্যাহ হীরুর মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে ফের জামিনের আবেদন করেন সানজারি। বেলা আড়াইটার দিকে জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়। শুনানিতে মিলা তার স্বামী সানজারির জামিন আবেদনের বিরোধিতা করেন। তিনি বলেন, “বিয়ের চারদিন পর জোর করে আমাকে তালাক দিতে বলে সানজারি। আমি রাজি না হওয়ায় আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে। বিয়ের আগে তার সঙ্গে আমার ১১ বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ১১ বছরে কোনো সমস্যা হয়নি। কিন্তু বিয়ের চারদিনের মধ্যে তার আচরণ পরিবর্তন হয়ে যায়। আমি তার জামিন নামঞ্জুরের জন্য আদালতের কাছে অনুরোধ করছি।” এ কথা বলেই মিলা কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে আসামিপক্ষের আইনজীবীকে বাদীর সঙ্গে মীমাংসা করতে বলে আগামী ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত সানজারির জামিনের মেয়াদ বাড়িয়ে দেন বিচারক। এ আদালতের পেশকার ফয়েজ আহম্মেদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বিচারক বলেছেন, আমি ইচ্ছে করলে আসামিকে কারাগারে নিতে পারতাম। উচ্চ আদালতে যেয়ে আসামি জামিন নিতেন। আমি চাই আপনারা ভেবে দেখুন সংসার রাখবেন কি রাখবেন না। দাম্পত্য সম্পর্ক ভেঙে যাক আমরা চাই না। আপস করবেন কিনা ভেবে দেখার জন্যই জামিনের মেয়াদ বাড়িয়ে দিলাম।” মিলার পক্ষে এ মহানগর দায়রা জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু শুনানি করেন। গত ৫ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মিলা এ মামলা করেন। মামলার পরই সানজারিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরদিন পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত রিমান্ড ও জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে সানজারিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর গত ৯ অক্টোবরও আদালত এ আসামির জামিন নামঞ্জুর করে। মিলার দায়ের করা মামলায় বলা হয়, বিয়ের পর পর্যায়ক্রমে কয়েকবার এ ধরনের মারধরের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত ৩ অক্টোবর তাকে মারধর করা হয়। এর আগে তার স্বামী পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক নিয়েছেন। আরো দশ লাখ টাকা দাবি করেছেন। টাকা না পেয়ে তার স্বামী তাকে মারধর করেছেন। একটি বেসরকারি এয়ারলাইন্সের বৈমানিক পারভেজ সানজারির সঙ্গে মিলার বিয়ে হয় গত ১২ মে।-বিডিনিউজ