হতাশায় শেষ হলো টাইগার ভক্তদের অপেক্ষা

আপডেট: জুন ১২, ২০১৯, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বাংলাদেশের খেলা মানেই প্রবাসীদের জন্য রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা। প্রথম তিন ম্যাচে মাশরাফির দলকে অকুণ্ঠে সমর্থন জানিয়েছেন প্রবাসীরা। গতকাল ব্রিস্টল কাউন্টি গ্রাউন্ডেও টাইগার ভক্তদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। অনেকক্ষণ গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে থেকে মাঠে ঢোকার সুযোগ পেয়েছেন তারা। কিন্তু বৃষ্টিতে খেলা পরিত্যক্ত হয়েছে। তাই বাংলাদেশের সমর্থকরা হতাশ, বিরক্ত। ২২ বছর ধরে ইংল্যান্ড প্রবাসী জসিমউদ্দিনের দুই সন্তান সাকিবের বিশাল ভক্ত। সপরিবারে খেলা দেখতে আসা এই ব্যবসায়ী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘আজকের (মঙ্গলবার) ম্যাচটা আমাদের জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কিন্তু আকাশের যা অবস্থা তাতে খেলাই শুরু হতে পারলো না। আমরা অনেক আশা নিয়ে খেলা দেখতে এসেছিলাম। বাচ্চাদের মনখারাপ। তারা খেলা দেখতে পারলো না।’
কালকের ম্যাচ বাতিল হলেও বাংলাদেশের সেমিফাইনালে খেলা নিয়ে আশাবাদী আরেক প্রবাসী ব্যবসায়ী নাজমুল, ‘টানা দুই ম্যাচ হেরে গেলেও আমাদের দল ভালো খেলছে। আমরা যে কাউকে হারাতে পারি। আমার বিশ্বাস, ভারত বা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অন্তত একটি ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পাবে।’
বাংলাদেশ থেকে খেলা দেখতে এসেছেন কণ্ঠশিল্পী টিনা রাসেল। টাইগারদের খেলা দেখতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় ছিলেন তিনি। কিন্তু বাধ সেধেছে বেরসিক বৃষ্টি। আক্ষেপ নিয়ে টিনা রাসেল বলেছেন, ‘ভেবেছিলাম টাইগারদের খেলা দেখবো, প্রিয় দলকে সমর্থন জানাবো। কিন্তু বৃষ্টির জন্য খেলাই শুরু হলো না। তাই মনখারাপ। আশা করি, বাংলাদেশের পরের ম্যাচ দেখতে পারবো, মাশরাফিদের জয়ের সাক্ষী হতে পারবো।’
ব্রিস্টলে বসবাস করা চার বন্ধু একটা ব্যানার নিয়ে খেলা দেখতে এসেছেন। যেখানে লেখা ‘মাৃআমি এখানে, হয়তো জিতবো নয়তো শিখবো।’ তাদের কাছে হার-জিত বড় কথা নয়, বাংলাদেশের খেলা দেখাই আসল কথা। কিন্তু চার বন্ধুর আশা পূরণ হয়নি।
ফয়সাল নামে এক শারীরিক প্রতিবন্ধী তরুণও এসেছেন খেলা দেখতে। ব্রিস্টলেই জন্ম নেওয়া ফয়সাল ভালো বাংলা বলতে পারেন না। কিন্তু ক্রিকেট দলকে ভালোবাসেন মনপ্রাণ দিয়ে। বাংলা-ইংরেজি মিশিয়ে তিনি বললেন, ‘আমি বাংলাদেশের খেলা সব সময় ফলো করি। আজ মাঠে বসে খেলা দেখার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু খেলা হলো না। অন্য শহরে খেলা দেখতে যেতে পারবো না। আশা করি, পরের ম্যাচগুলো বাংলাদেশ জিতবে।’
লন্ডনে থেকে খেলা দেখতে এসেছেন ফাহিম ও রাজা নামের দুই তরুণ। কিন্তু বৃষ্টির তা-বে তারাও হতাশ। হতাশার মাঝে অনেকেই অবশ্য টাইগারদের ড্রেসিংরুমের সামনে ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ বলে স্লোগান দিয়েছেন। কেউ বা ‘জিতবে টাইগার দেখবে বিশ্ব’ চিৎকারে গলা ফাটিয়েছেন। একজন তো সজোরে বলেই ফেললেন, ‘সাকিব ভাই রেডি হন, খেলা কিন্তু হবে!’ কিন্তু খেলাই যে হলো না!