হলিউডে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে টাস্কফোর্স!

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৭, ১:২৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আমেরিকার পুলিশের কাছে বাঘা বাঘা মানুষদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আসছে একের পর এক। সংখ্যাটা বেড়েই চলেছে। তাই হলিউডে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে গঠন করা হলো বিশেষ টাস্কফোর্স। যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস কাউন্টি ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি জ্যাকি লেইসি এ ঘোষণা দিয়েছেন।
আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো চলচ্চিত্র প্রযোজক হার্ভি ওয়াইনস্টেন, পরিচালক জেমস টোব্যাক ও অভিনেতা এড ওয়েস্টউইকসহ হলিউডের হেভিওয়েটদের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করছে। এর মধ্যে গত ৯ নভেম্বর টাস্কফোর্সের ঘোষণা দেওয়া হলো।
ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি জানান, এই বিষয়ে একসঙ্গে গবেষণার জন্য যৌন অপরাধ বিষয়ক বর্ষীয়ান একদল কৌঁসুলীকে দায়িত্ব দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি ফৌজদারী মামলার ক্ষেত্রে বাস্তব তথ্যগুলোর মান যাচাইয়ের মাধ্যমে আইনি পর্যালোচনা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে তাদের।
জ্যাকি লেইসি জানান, এখনও কোনও মামলা পর্যালোচনার জন্য প্রসিকিউটরদের কাছে পাঠায়নি পুলিশ। তিনি বলেন, ‘আমরা লস অ্যাঞ্জেলেস ও বেভারলি হিলস ডিপার্টমেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।’
আইনি বিশেষজ্ঞদের মতে, টাস্কফোর্স গঠন ইতিবাচক দিক। তবে সংশ্লিষ্টদের এ নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ এ ধরনের মামলাগুলো প্রমাণ করা কঠিন হতে পারে। কয়েক বছর আগে এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু এসব ক্ষেত্রে শারীরিক প্রমাণ বা সাক্ষীর বক্তব্য না থাকলে সুরাহা করা যায় না।
সাবেক প্রসিকিউটর লরি লেভেনসন বলেন, ‘টাস্কফোর্স গঠন একটি শহর ও এর সংস্কৃতির দৈন্যদশা ও বড়সড় সমস্যার বার্তা বহন করে। বর্ষীয়ান ও অভিজ্ঞ কৌঁসুলীদের এই কাজে যুক্ত করা প্রশংসনীয় উদ্যোগ। তবে এখান থেকে বেশি কিছু প্রত্যাশা না করাই ভালো।’
গত মাসে হার্ভি ওয়াইনস্টেনের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। এরপর এমন একের পর এক খবর ফাঁস হতে থাকে বিশ্ব সংবাদ মাধ্যমগুলোতে।
ওয়াইনস্টেনের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে ইতালিয়ান এক মডেল-অভিনেত্রীকে ধর্ষণ ও ২০১৫ সালে এমন আরেকটি ঘটনার অভিযোগের তদন্ত করছে লস অ্যাঞ্জেলেস পুলিশ ডিপার্টমেন্ট। এছাড়া টোব্যাকের বিরুদ্ধে দুইশ’রও বেশি নারীর যৌন নিপীড়নের অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা।
‘গসিপ গার্ল’ অভিনেতা ওয়েস্টউইকের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালে দুই নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। তিনজনই সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাদের দাবি, সম্মতি নিয়েই সব করেছেন তারা। বেভারলি হিলস পুলিশ ডিপার্টমেন্টও ওয়াইনস্টেন ও টোব্যাকের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করছে। সূত্র: আইএএনএস, টাইমস অব ইন্ডিয়া, বাংলা ট্রিবিউন।