হলিউড আর বলিউডের পার্থক্য কোথায়?

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭, ১:৩৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এখন আন্তর্জাতিক তারকা। তাকে থামাতে পারে সাধ্য কার! ইতোমধ্যে তার ঝুলিতে জমা হয়েছে আমেরিকান টিভি সিরিজ ‘কোয়ান্টিকো’ এবং হলিউডের ছবি ‘বেওয়াচ’। এখন হাতে আছে হলিউডের আরও দুই ছবি-‘অ্যা কিড লাইক জ্যাক’ ও “ইজন’ট ইট রোমান্টিক?”।
আন্তর্জাতিক শোবিজে বেশি ব্যস্ততা আর প্রশংসায় ভাসলেও প্রিয়াঙ্কার মনটা পড়ে থাকে শেকড়ে। তার ভাবনাজুড়ে ভারত আর বলিউড চলচ্চিত্র শিল্প। সম্প্রতি তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল-হলিউডে তিনি কোন জিনিসটা পারেন যেটা বলিউডে করা যায় না? উত্তরে ৩৫ বছর বয়সি এই তারকা বলেছেন, ‘কিছুই না।’
তবে হলিউড ও বলিউডের মধ্যে একটা পার্থক্য ঠিকই চোখে পড়েছে প্রিয়াঙ্কার। হলিউডে পাওয়া বাড়তি সুবিধা প্রসঙ্গে তিনি বললেন, ‘আমেরিকায় নারীকেন্দ্রিক ছবিকে প্রায় সব অভিনেতাই সমর্থন জানান। বলিউডের বেলায় এ চিত্র দেখা যায় না। নারীপ্রধান ছবির প্রতি সমর্থনটাকেই কেবল বলিউডে মিস করি।’
এদিকে বলিউডে নতুন দুটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হতে যাচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা। ২০১৮ সালের মার্চ মাসের পর এগুলোর কাজ করবেন তিনি। ততদিনে টিভি সিরিজ ‘কোয়ান্টিকো’র কাজ শেষ হয়ে যাবে।
জানা গেছে, টড স্ট্রাউস-শুলসন পরিচালিত “ইজন’ট ইট রোমান্টিক?” ছবির জন্য সিক্স প্যাক অ্যাবস তৈরি করছেন প্রিয়াঙ্কা। কারণ গল্পে তার চরিত্রটি যোগব্যায়ামের একজন প্রশিক্ষকের।
অন্যদিকে ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে জর্ডানে সিরীয় শরণার্থী শিশুদের কাছে যাওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রিয়াঙ্কার সমালোচনা করেছেন অনেকে। তাদের মন্তব্য, ভারতে অপুষ্টিতে আক্রান্ত শিশুদের সময় দেওয়া উচিত ছিল তার। তবে নিন্দুকদের জবাব দিয়েছেন তিনি। তার ভাষ্য, ‘ইউনিসেফ ইন্ডিয়ার হয়ে ১২ বছর ধরে কাজ করছি। ভারতের অনেক স্থানে গিয়েছি।’-বাংলা ট্রিবিউন