হ্যাকিং থেকে বাঁচার উপায় জানাল ফেসবুক

আপডেট: অক্টোবর ২৪, ২০১৯, ১:১৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


নানা ভাবে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ার ঘটনা বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ও পেজ নিরাপদ রাখতে পরামর্শ দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।
বাংলাদেশে পিআর পার্টনার ‘বেঞ্চমার্ক পিআর’ এর মাধ্যমে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ‘মানুষের তথ্য নিরাপদে রাখা ফেসবুকে আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। ধোঁকাবাজি চিহ্নিত করে তা প্রতিরোধ করতে, তথ্যের এবং আমাদের সিস্টেমের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আমাদের টিম দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছে। আমরা যখন নিরাপত্তার বিষয়গুলো খুঁজে বের করে তা সমাধান করতে কাজ করছি, আপনিও তখন আপনার অ্যাকাউন্ট এবং পেজ নিরাপদ রাখার জন্য কিছু কাজ করতে পারেন। আপনার অ্যাকাউন্ট এবং ফেসবুক পেজের নিরাপত্তা রক্ষা করার জন্য সন্দেহজনক অনুরোধ এবং কার্যক্রম বুঝতে সহায়তা করে এমন কিছু নিরাপত্তা বিষয়ক পরামর্শ নিয়ে আমরা একটি তালিকা তৈরি করেছি। আপনার বিজনেস পেজ যেহেতু আপনার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টের সাথে সম্পর্কিত, তাই এই দুইটি বিষয়েরই নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ।’
একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড এবং টু-ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশন দিয়ে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিশ্চিত করুন
একটি শক্তিশালী এবং অসাধারণ পাসওয়ার্ড পছন্দ করুন। আপনার নাম, ফোন নম্বর, ই-মেইল অ্যাড্রেস বা সাধারণ শব্দ যোগ করা থেকে বিরত থাকুন। অন্যান্য অনলাইন সেবায় আপনার ফেসবুকের পাসওয়ার্ড একবারের বেশি ব্যবহার করা এবং অন্য কারো সাথে নিজের পাসওয়ার্ড শেয়ার করা থেকে সবসময় বিরত থাকুন।
ফেসবুকের জানিয়েছে, আপনার অ্যাকাউন্টকে আরো নিরাপদ করার জন্য নিজের এবং আপনার ব্যবসার সাথে জড়িত অন্যান্য সবার অ্যাকাউন্টে টু-ফেক্টর অথেন্টিকেশন চালু করার পরামর্শ আমরা দিয়ে থাকি। আপনি এই বাড়তি নিরাপত্তা স্তরটি একবার সেট করে নিলে অন্য কোনো কম্পিউটার বা মোবাইল ফোন থেকে আমাদের অপরিচিত কেউ যদি আপনার অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে চেষ্টা করে, তাহলে প্রতিবারই আমরা আপনাকে কোড বা লগ ইন নিশ্চিত করতে বলব। আমাদের অপরিচিত কোন ডিভাইস থেকে কেউ আপনার অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে চাইলে আপনাকে যেন সতর্কবার্তা পাঠাতে পারি সেজন্য সাইন আপ করতেও আমরা আপনাকে অনুপ্রাণিত করি।
টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন সেট আপ ও নিয়ন্ত্রণ এবং অপরিচিত লগ ইন-এর জন্য সতর্কবার্তা পাওয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হেল্প সেন্টার পরিদর্শন করুন।
পেজের কার্যক্রম ও নিয়ম-নীতি পর্যালোচনা : এ ব্যাপারে ফেসবুক জানিয়েছে, পেজের যেসব কার্যক্রম এবং নিয়ম-নীতি আছে সেগুলোর সাথে নিজেকে পরিচিত করুন। যাদের আপনার পেজের সেটিং-এ অ্যাডমিন অ্যাকসেস আছে, তাদের নিয়মিত পেজের কার্যক্রম এবং নিয়ম-নীতি পর্যালোচনা করা এবং আপনার পেজে কোনো বিজনেস ম্যানেজারকে যুক্ত করার সময় নিজের দেয়া নিয়মগুলোর ব্যাপারে এক মূহূর্ত ভেবে দেখার পরামর্শ আমরা দিয়ে থাকি। আপনার পেজের অ্যাডমিন একজনের বেশি রাখার পরামর্শও আমরা দিয়ে থাকি, যেন কোনো কারণে কখনো আপনি আপনার পেজের অ্যাকসেস হারিয়ে ফেলেন, আপনার বিশ্বস্ত কেউ পেজের আপডেট করা সহ অন্যান্য কাজ চালিয়ে যেতে পারেন এবং আপনাকেও আবার সেখানে ফিরিয়ে নিতে পারেন।
অপরিচিত কারো ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন
ফেসবুকের মতে, মানুষের সাথে বন্ধুত্ব করে তাদের কাজ থেকে কার্যসিদ্ধি করার লক্ষ্যে স্ক্যামার বা সন্দেহজনক ব্যক্তি নকল অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারে। এদের ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট গ্রহণ করলে তারা আপনার টাইমলাইনে স্প্যাম পোস্ট করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারে। স্ক্যামার আপনাকে এবং আপনার পরিচিতজনদের বিদ্বেষপূর্ণ পোস্টে ট্যাগ করতে এবং মেসেজ পাঠাতে পারে, তাই সতর্কতার সাথে আপনার পরিচিত এবং বিশ্বস্ত মানুষদের বন্ধুত্বের অনুরোধ গ্রহণ করাকে আমরা অনুপ্রাণিত করি। একইভাবে, আপনার পেজ ম্যানেজ করার জন্য এমন কোনো নিয়ম-নীতি রাখবেন না যে বিষয়ে আপনি বিস্তারিত জানেন না। আপনার পেজের সন্দেহজনক কোনো অনুরোধ আপনি এখানে রিপোর্ট করতে পারেন।
সন্দেহজনক লিংক এবং ক্ষতিকর সফটওয়্যারের ব্যাপারে সতর্ক থাকুন : এ ব্যাপারে ফেসবুক বলেছে, অপরিচিত লিংক, বিশেষ করে আপনি যাদের জানেন না বা বিশ্বাস করেন না তাদের কাছ থেকে আসা লিংকগুলোর ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। সন্দেহজনক লিংকে ক্লিক করা, সন্দেহজনক ফাইল ওপেন করা বা সন্দেহজনক অ্যাপ ইনস্টল করা বা ব্রাউজার এক্সটেনশন করার বিষয়ে কোনো বন্ধু বা পরিচিত সংস্থার কাছ থেকে অনুরোধ আসলেও সেগুলোর ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। এর মধ্যে ফেসবুক, ব্যক্তিগত ম্যাসেজ এবং ই-মেইলে পাঠানো লিংক অন্তর্ভূক্ত। মনে রাখবেন, ফেসবুক কোনো মেইলে কখনো আপনার পাসওয়ার্ড জানতে চাইবে না। ফেসবুক থেকে পাঠানো বলে দাবি করা কোনো মেইলের সত্যতা প্রমাণ করার জন্য আমরা সম্প্রতি সিকিউরিট ও লগ ইন সেটিং-এ যে মেইলগুলো পাঠিয়েছি তা দেখে সবসময় নিশ্চিত হতে পারেন। আপনি যদি মনে করেন আপনার ব্যক্তিগত তথ্য শেয়ার করার জন্য কোনো পোস্ট বা বার্তা পাঠানো হচ্ছে, তাহলে এখানে রিপোর্ট করুন।
আপনার ডিভাইস বা কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে ভাইরাস আক্রমণ থেকে বাঁচানোর জন্য সন্দেহজনক সফটওয়্যারের চিহ্নগুলো এবং তা থেকে আপনার ডিভাইসকে রক্ষা করার উপায় সম্পর্কে জানুন। এবং আপনার ডিভাইস, ওয়েব ব্রাউজার এবং অ্যাপ্লিকেশন আপ-টু-ডেট রাখা এবং সন্দেহজনক অ্যাপ্লিকেশন বা ব্রাউজ এড-অন অপসারণ করার বিষয়গুলো মনে রাখবেন।
ট্রাস্টেড কন্টাক্ট সেট করা : যদি কোনো কারণে আপনি আপনার অ্যাকাউন্ট এবং পেজের অ্যাকসেস হারিয়ে ফেলেন, সেজন্য আগেই আপনার বন্ধুদের ট্রাস্টেড কন্টাক্ট হিসেবে সেট করে রাখতে পারেন। আপনি যেন নিজের অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে পারেন, সেজন্য তারা আপনাকে ইউআরএল-এর মাধ্যমে একটি রিকাভারি কোড পাঠাতে পারবে।
সবশেষে, আপনার যদি মনে হয় আপনার ব্যাক্তিগত অ্যাকাউন্টের বিষয়ে আপনাকে কোনো না কোনোভাবে আপোষ করতে হচ্ছে তাহলে facebook.com/hacked এবং আপনার পেজ সিকিউরিটি নিশ্চিত করার জন্য হেল্প সেন্টার ভিজিট করুন। আপনার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বাড়ানোর আরো বিভিন্ন উপায় এবং নিরাপত্তা বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন প্রাইভেসি বেসিকস।