১০ জুনের মধ্যে বেতন পরিশোধের আশ্বাস মালিকদের

আপডেট: জুন ৪, ২০১৮, ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


পোশাক শিল্প

জুনের ১০ তারিখের মধ্যে শ্রমিকদের মে মাসের বেতন পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছেন পোশাক শিল্প মালিকরা। গতকাল বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে বৈঠকে এ আশ্বাস দেন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ ও বিটিএমএ নেতারা। শ্রমিকদের বেতন-বোনাস পরিশোধ পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকটির আয়োজন করা হয়।
মালিকদের উদ্দেশে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, কথা একটাই সময়মতো বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে হবে। পোশাক খাতের বাজার ভালো। যারা ব্যবসা করেন তাদের অর্ডারের কোনো অভাব নেই। অবস্থাটা যে খুব ভালো, বিজিএমইএকে দেখলেই তা বোঝা যায়। শুধু আমরা হাসলেই তো হবে না, শ্রমিকের মুখেও হাসি দেখতে চাই।
তিনি বলেন, মে মাসের বেতন আপনারা জুনের ১০ তারিখের মধ্যে দিয়ে দেবেন, যেটা আপনারা স্বাভাবিক প্রক্রিয়াতেই প্রতি মাসে দিয়ে থাকেন। এবার বাড়তি হবে বোনাস। আশা করি, এ ব্যাপারে কোনো সমস্যা হবে না। পোশাক খাতের নেতারা বিষয়টি উপলব্ধি করেছেন এবং বলেছেনও, যথাসময়ে তারা শ্রমিকদের প্রাপ্য পরিশোধ করবে। এটা যদি হয়, তাহলে শান্তিপূর্ণভাবে আমরা ঈদ উদযাপন করতে পারব।
নিট পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর সহসভাপতি মনসুর আহমেদ এ সময় বলেন, প্রতিবারের মতো এবারো শ্রমিকরা যেন বেতন-ভাতা সময়মতো পায়, সে বিষয়ে সচেষ্ট আছে বিকেএমইএ। দু-একটা কারখানা আছে যেগুলো সমস্যা করে। সেগুলো আমাদের চিহ্নিত। শিল্প পুলিশ আমাদের কাছে ৪৫টি কারখানার একটা তালিকা দিয়েছে। এগুলো অনেক ছোট ফ্যাক্টরি। এরা সব সময়ই সমস্যায় থাকে। এগুলোর সঙ্গে আমরা নিবিড়ভাবে যোগাযোগ করছি। এরই মধ্যে তাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নিয়ে এসেছি। ছুটির ব্যাপারে আমরা বলেছি, ১৪ জুন সব ফ্যাক্টরি আমরা ছুটি দিয়ে দেব। যদি ১৪ জুনের পর একটা কারখানাও কেউ চালাতে চায়, তাদের সংগঠন থেকে অনুমতি নিতে হবে।
শ্রমিকদের বেতন-বোনাস যথাসময়ে পরিশোধের আশ্বাস দিয়ে বিটিএমএ পরিচালক বিএম শোয়েব বলেন, বিটিএমএ সদস্যদের নিয়ে কখনই কোনো অসন্তোষ হয়নি। একটি বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, ঈদের বেতন-বোনাস বাবদ প্রদেয় অর্থের পরিমাণ অনেক হয়। ব্যাংক থেকে তুলে নেয়ার সময় অনেক অকারেন্স হয়। বেতন-বোনাস দেয়ার সময় আমরা যেন নিরাপত্তা পাহারা পাই, সে বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
১০ জুনের মধ্যে মে মাসের বেতন স্বাভাবিকভাবেই হয়ে যাবে বলে আশ্বস্ত করেন বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, এরই মধ্যে আমরা স্বরাষ্ট্র, শ্রম ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে তিনটি সভা করেছি। প্রতিটি সভায়ই বেতন-ভাতা নিয়ে আলাপ হয়েছে। গত কয়েক বছরের মতো এবারো কোনো সমস্যা হবে না। আমরা আশ্বস্ত করতে চাই, কিছু ফ্যাক্টরির ছোটখাটো প্রবলেম হয়তো থাকবে, সেগুলো আমরা মিলেমিশে সমাধান করব, করতেই হবে। ১৪ তারিখ পর্যন্ত আমাদের কারখানাগুলো চলবে। ঈদের আগে বেতন ও বোনাস যেটা দেয়ার কথা, সেটা আমরা দিয়ে দিতে পারব।
শ্রমিকের বেতন-বোনাস দেয়া নৈতিক দায়িত্ব উল্লেখ করে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, শ্রমিক ভাই-বোনদের আমরা বলতে চাই, আপনারা কোনো ধরনের উসকানিতে পা দেবেন না। আপনাদের বেতন বোনাস বকেয়া রেখে বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ কোনো দিন ঈদ করতে যায়নি, আগামীতেও যাবে না। তথ্যসূত্র:বণিক বার্তা