১৪ দলের প্রস্তুতিসভায় বক্তারা || প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর জনসভায় নির্বাচনের পথনির্দেশনা দিবেন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮, ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


১৪ দলের প্রস্তুতি সভার সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং প্রধান অতিথি সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশাসহ নেতৃবৃন্দ-সোনার দেশ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২২ ফেব্রুয়ারির জনসভা ১৪ দলের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই জনসভাতেই প্রধানমন্ত্রী আগামি নির্বাচনের পথনির্দেশ দিবেন। এইজন্য জনসভাকে কেন্দ্র করে এই অঞ্চলের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে হবে। যেন সব মানুষ মনে করতে পারে এই জনসভা তাদের। এইজন্য প্রত্যেক মানুষের দ্বারে দ্বারে যেতে হবে। তুলে ধরতে হবে এই অঞ্চলের জন্য প্রধানমন্ত্রী যেসব উন্নয়ন করেছেন তার তালিকা।
গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক প্রস্তুতি সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। এ প্রস্তুতি সভার আয়োজন করে নগর ১৪ দল।
বক্তারা বলেন, জনসভাকে কেন্দ্র করে নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডের প্রতিটি মহল্লায় যেতে হবে। প্রত্যেক মানুষের বাড়ি বাড়ি যেতে হবে। মানুষদের বোঝাতে হবে, তাদেরকে অনুভব করাতে হবে মহাজোট সরকার তাদের জন্য কত গুরুত্বপূর্ণ। নৌকা প্রতীক তাদের জন্য কত গুরুত্বপূর্ণ। এইজন্য সবাইকে নৌকা প্রতীকের জন্য ভোট চাইতে হবে। সব মানুষ জনসভাস্থলেও না এলেও প্রত্যেকে যেন জানতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে। এ লক্ষ্যে প্রচার মিছিল, সমাবেশ, লিফলেট বিতরণ, পথসভাসহ ব্যাপক মাত্রায় নানা কর্মসূচি পালন করতে হবে।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। সভায় সভাপতিত্ব করেন, আওয়ামী লীগের নগর কমিটির সভাপতি ও সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, ওয়ার্কার্স পার্টির নগরের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ প্রামানিক দেবু, জাসদ নগরের সভাপতি প্রদীপ মৃধা, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহিল মাসুদ শিবলি, ন্যাপ নেতা মুস্তাফিজুর আলম খান, জাসদ নেতা শফিকুজ্জামান শফিক, সাম্যবাদী দলের নেতা কমরেড মাসুদ রানা, নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, নাইমুল হুদা রানা, রেজাউল ইসলাম বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু, অ্যাড. আসলাম সরকার, আসাদুজ্জামান আজাদ, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক ওমর শরীফ রাজীব, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, উপ-দপ্তর সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দোলন, উপ-প্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমনসহ ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ।
ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, জনসভাকে ঘিরে আমাদের লক্ষ্য থাকবে প্রতিটি মানুষের দ্বারে উন্নয়নের বার্তা পৌঁছানো। প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে কর্মসূচি পালন করা। যেন সব মানুষের কাছে জনসভার খবর পৌঁছানো যায়।
খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডের প্রতিটি বাড়িতে ব্যাপক কর্মসূচি পালন করতে হবে। ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন টানাতে হবে। প্রতিটি মহল্লায় পথসভা করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী যে উন্নয়ন করেছেন তা পৌঁছাতে হবে প্রতিটি মানুষের দ্বারে দ্বারে।