বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী

২০২৫ সালের মধ্যে ফাইভ-জি ব্যবহারকারী হবে ২৬০ কোটি

আপডেট: November 28, 2019, 1:08 am

সোনার দেশ ডেস্ক


টেলিকম নেটওয়ার্ক পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এরিকসনের মতে, ২০২৫ সালের মধ্যে পঞ্চম প্রজন্মের প্রযুক্তি সুবিধা ফাইভ-জি ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ২৬০ কোটিতে। এ সংখ্যাটি ২০১৯ সালের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এক কোটি ৩০ লাখ। ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক বিস্তৃতির হিসাব অনুযায়ী এ তথ্য জানিয়েছে এরিকসন।
সম্প্রতি এরিকসনের দ্বি-বার্ষিক মোবিলিটি রিপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, যেখানে বর্তমানে ফাইভ-জি প্রযুক্তি বর্তমানে যে গতিতে বাড়ছে সেটি এলটিই প্রযুক্তির চেয়ে অনেকগুণ বেশি। এভাবে এ প্রযুক্তির নেটওয়ার্ক বিস্তৃত হতে থাকলে ২০২৫ সাল নাগাদ বিশ্বের ২৯ শতাংশ মোবাইল ব্যবহারকারী এ প্রযুক্তি সুবিধায় যুক্ত হবেন।
টেলিকম নেটওয়ার্ক পণ্য তৈরি ও কাজে চীনের হুয়াই এবং নকিয়া’র জন্য প্রতিযোগিতায় নিজেদের অবস্থান আরও শক্তিশালী করার ব্যাপারে কাজ করছে এরিকসন। প্রতিষ্ঠানটির এমন কাজে বাজার বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, উত্তর-পূর্ব এশিয়ার মতোই উত্তর আমেরিকায়ও পুরো ফাইভ-জি প্রযুক্তি বাজারের ৭৪ শতাংশই দখলে থাকবে এরিকসনের।
এরিকসন নেটওয়ার্কসের প্রধান ফ্রেডরিক জেজলিং জানান, নতুন প্রযুক্তির প্রায় সব স্মার্টফোনই ফাইভ-জি প্রযুক্তি সমর্থন করে। ২০২০ সাল নাগাদ ফাইভ-জি প্রযুক্তি সুবিধার আরও স্মার্টফোন বাজারে আসবে এবং এতে এ প্রযুক্তি ব্যবহারকারীও বাড়বে।
তবে ফাইভ-জি প্রযুক্তি ব্যবহার বাড়ার মধ্যেও এগিয়ে আছে ফোর-জি প্রযুক্তি। এখনও বাজারে সবচেয়ে বেশি ব্যবহারকারী ফোর-জি প্রযুক্তির সঙ্গে জড়িত। এরিকসনের তথ্য মতে, ২০২২ সাল নাগাদ ফোর-জি প্রযুক্তির সুবিধার আওতায় থাকবেন ৫৪০ কোটি ব্যবহারকারী।
মোবাইলফোন প্রযুক্তির দ্রুত এগিয়ে চলার পথে এখন ব্যবহারকারীদের চাওয়া আরও বেশি ডাটার গতি। আর এ সুবিধাকে দ্রুত ব্যবহারকারীদের হাতের নাগালে পৌঁছতে কাজ করে যাচ্ছে নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এবং মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। তথ্যসূত্র: রয়টার্স