৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে

আপডেট: আগস্ট ২০, ২০১৯, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

নগরীতে চলাচলকারী সকল অটোরিকশা (৬ আসন) ও চার্জার রিকশার (৩ আসন) রেজিস্ট্রেশন (নিবন্ধন) কার্যক্রম আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে আবেদন জমা দিতে হবে। ১ সেপ্টেম্বরের পর থেকে আবেদনবিহীন এবং ১ অক্টোরব থেকে রেজিস্ট্রেশন বিহীন অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা জব্দ করা হবে।
গতকাল সোমবার বিকেলে নগর ভবনের মিনি কনফারেন্স কক্ষে অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক মতবিনিময় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন, অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার চলাচলে শৃঙ্খলা আনয়নে ইতোমধ্যে নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। নীতিমালা অনুযায়ী অটোরিকশা দুই শিফটে চলাচল করবে। এ জন্য সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করা হচ্ছে। আশা করছি, রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন হলে অটোরিকশা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আসবে। এর মাধ্যমে নগরীর যানজট সমস্যা দূর হবে। এ সময় নীতিমালা বাস্তবায়নে অটোরিকশা মালিক, চালকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন মেয়র।
সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে সকল অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার আবেদন অনলাইনে জমা দিতে হবে। সিটি করপোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ড এবং নগর ভবনের বুথে আবেদন করা যাবে। আবেদনের ১০ দিনের মধ্যেই নির্র্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। অন্যথায় আবেদনটি আবেদন বলে গণ্য হবে না।
সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড সরিফুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে সভায় ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযিম, ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলম, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা শাহানা আখতার জাহান, মেয়রের একান্ত সচিব আলমগীর কবির, মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (ট্রাফিক) অর্নিবান চাকমা, মহানগর ইজিবাইক মালিক-শ্রমিক সমিতি সভাপতি সরিফুল ইসলাম সাগর, সহ-সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ, মহানগর ইজিবাইক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রাশেদুজ্জামানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, সিটি করপোরেশন কর্তৃক প্রণীত নীতিমালা অনুযায়ী নগরীতে সকাল ও বিকেল দুই শিফটে নিবন্ধিত মোট ১০ হাজার অটোরিকশা চলাচল করবে। ৫ হাজার চার্জার রিকশার লাইসেন্স প্রদান করা হবে। চার্জার রিকশা চলাচলের নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই। নতুন অটোরিকশা লাইসেন্স ফি ১০ হাজার টাকা, অটোরিকশা নবায়ন ফি-২ হাজার ৫০০ টাকা, চার্জার রিকশা নতুন লাইসেন্স ফি ৩ হাজার টাকা, চার্জার রিকশা নবায়ন ফি ১ হাজার টাকা, নতুন চালক ফি ২০০, চালক নবায়ন ফি ১০০ টাকা।
যানজট নিরসন ও জনদুর্ভোগ কমাতে গত ১ জুলাই দেশে এই প্রথম স্মার্ট অটোরিকশা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন। এটি বাস্তবায়নে এ সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়ন করেছে সিটি করপোরেশন। নীতিমালা অনুযায়ী, মাসের প্রথম সপ্তাহে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মেরুন রং এবং দুপুর আড়াইটা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পিত্তি রঙের অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করবে। পরের সপ্তাহে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত পিত্তি রঙ এবং আড়াইটা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত মেরুন রঙের অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করবে। তবে শুক্রবার ও সরকারি ছুটির দিনে সারাদিন এবং প্রতিদিন রাত সাড়ে ১০টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত উভয় রঙের অটোরিকশা চলবে। সিটি করপোরেশন থেকে চালকদের স্মার্ট কার্ড প্রদান করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ