অক্সিজেন ছাড়াই এভারেস্টের শীর্ষে ভারতীয়

আপডেট: মে ২৪, ২০২৪, ৪:৪৬ অপরাহ্ণ

স্কালজাং রিগজিন।

সোনার দেশ ডেস্ক :


সর্বোচ্চ শৃঙ্গের পথে সঙ্গে নেই কোনো শেরপা, নেই অক্সিজেন সিলিন্ডার। এ ভাবেই বৃহস্পতিবার (২৩ মে) ভোরে এভারেস্টের (৮৮৪৮ মিটার) শীর্ষে আরোহণের কৃতিত্ব অর্জন করলেন লে-র বাসিন্দা, ৪২ বছরের স্কালজাং রিগজিন।

অক্সিজেন ছাড়াই সর্বোচ্চ শৃঙ্গের শীর্ষে পৌঁছনো প্রথম ভারতীয় হিসেবে নাম রয়েছে ফু দোরজে শেরপার (১৯৮৪ সালে)। তার পরে ভারতীয় হিসেবে এই কৃতিত্ব লাদাখের রিগজিনের। এ দিন স্থানীয় সময় ভোর ৪:৩০ মি নাগাদ এভারেস্টের সামিটে পৌঁছে যান তিনি, একা।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালে শেরপা ও অক্সিজেন সিলিন্ডার ছাড়া অন্নপূর্ণা (৮০৯১ মিটার, দশম উচ্চতম) এবং লোৎসের (৮৫১৬ মিটার, চতুর্থ উচ্চতম) সামিটে পৌঁছেছিলেন তিনি, যা ভারতীয় হিসেবে প্রথম।

২০২৩ সালে এভারেস্ট-লোৎসেজয়ী, ভারতীয় সেনাবাহিনীর মেজর চিরাগ চট্টোপাধ্যায় জানান, এ বছর ধৌলাগিরি অভিযানে তাঁর সঙ্গী ছিলেন রিগজিন। কিন্তু খারাপ আবহাওয়ার কারণে রুটই খোলা যায়নি এ বার। এর পরেই এভারেস্টে যান রিগজিন। চিরাগ বলছেন, ‘‘গত কয়েক দিনে এভারেস্টে অত্যধিক ভিড় ছিল।

এতো ভিড়ে অক্সিজেন ছাড়া এগোনো বিপজ্জনক হতো। তাই রিগজিন ক্যাম্প ২-তে বসে অপেক্ষা করেছে। মঙ্গলবার (২১ মে) সেখান থেকে ক্যাম্প ৩ যায়। বুধবার (২২ মে) বিকেলের দিকে ক্যাম্প ৪ থেকে সামিটের দিকে যাত্রা করে।’’ এ দিনই রিগজিন ক্যাম্প ২-তে নেমে এসেছেন।

প্রসঙ্গত, এভারেস্টে শেরপা ও অক্সিজেনের সাহায্য ছাড়া এগিয়ে গত বছর নিখোঁজ হন হাঙ্গেরির জিলার্দ সুহাজদা। এ বছর একই ভাবে এভারেস্টের শীর্ষ ছুঁয়ে ফেরার পথে মৃত্যু হয় মঙ্গোলিয়ার দুই পর্বতারোহীর। এ দিন অক্সিজেন ছাড়া এগিয়ে কেনিয়ার এক আরোহীর মৃত্যুর খবরও মিলেছে। তবে চিরাগের মতে, আট হাজারি পথে শেরপা ও সিলিন্ডার ছাড়া সামিটের পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে রিগজিনের। তাই এসব খবর তাঁর আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরাতে পারেনি।

এ বারের এভারেস্ট মৌসুমে বাংলা থেকে যাওয়া, হুগলির সবিতা মাহাতো অসুস্থতার কারণে ৮৫০০ মিটার থেকে ফিরতে বাধ্য হয়েছেন। অপর বাঙালি অভিযাত্রী, বাংলাদেশের চিকিৎসক-পর্বতারোহী বাবর আলি গত ১৯ এবং ২১ মে যথাক্রমে এভারেস্ট এবং লোৎসের সামিট ছুঁয়েছেন।
তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার অনলাইন

 

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version