অগ্নিদগ্ধ রেখার শারীরিক অবস্থার অবনতি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৭, ১:০৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


দগ্ধ গৃহবধূ রেখা বেগমের অবস্থার অবনতি হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুর থেকে তার অবস্থার অবনতি হয়। বিকেলে শ্বাস-প্রশ্বাসের কষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। খুব দ্রুত তাকে ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) রাখার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।
দগ্ধ গৃহবধূর ভাই নওশাদ আলী জানান, গতকাল দুপুরের পর থেকে রেখা বেগমের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। তিনি স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে পারছিলেন না। এরপরে চিকিৎসকরা তাকে অক্সিজেন দিয়ে রেখেছেন। এছাড়া তাকে আইসিইউতে ভর্তির কথা জানিয়েছে।
চিকিৎসকের বরাত দিয়ে নওশাদ আলী আরো জানান, রেখা বেগমের ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপও আছে। সে কারণে ক্ষতগুলো বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এদিকে রামেক হাসপাতাল বার্ন ইউনিটের ইনচার্জ ডা. আফরোজা নাজনিন জানান, রেখা বেগমকে সুস্থ করার জন্য সব ধরনের চেষ্টা তারা করছেন। ।
এর আগে বৃহস্পতিবার (০৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজশাহীর দরগাপাড়া এলাকায় রেখার শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যান এক নারী। এরপর রেখাকে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয়রা। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখা এই ঘটনার জন্য তার বাল্যকালের বান্ধবী ফেরদৌসি খাতুনকে  (৩৫) দায়ী করে তার নাম বলেন।
তার কথার ভিত্তিতে ওই রাতেই অভিযান চালিয়ে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ ফেরদৌসি খাতুনকে আটক করে। তিনি কশাইপাড়া এলাকার আলম হোসেনের মেয়ে। ফেরদৌসি রেখার বাল্যকালের বান্ধবী। এরই সুবাদে তার স্বামী কামরুল হুদার সঙ্গে পরকীয়ায় ফেরদৌসি জড়িয়ে পড়ে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে ।
এ ঘটনায় রেখা বেগমের বড় ভাই নওশাদ আলী বাদি হয়ে স্বামী কামরুল হুদা ও রেখার বান্ধবী ফেরদৌসীকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে তারা দুইজন জেলহাজতে রয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ