অনগ্রসর বেদে জনগোষ্ঠীকে নিয়েও প্রধানমন্ত্রী কথা বলছেন: জেলা প্রশাসক

আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০২০, ১:১৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


জাতীয় সমাজসেবা দিবসের আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক হামিদুল হক, জেলা পুলিশ সুপার শহিদুল্লাহ, বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আক্তার রেণীসহ অন্যরা সোনার দেশ

আমরা অনেকেই বলি দেশে যে উড়াল সেতু হচ্ছে তা বড়লোকের কাজ, পায়রাবন্দর হচ্ছে, মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়েছি এগুলো বড় লোকের কাজ- এ কাজগুলো হলেই এখান থেকে যে সুবিধা আসবে তা গরিব মানুষের মাঝে আসবে। এখানে আমাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। এ সরকার শুধু বড়লোকের সরকার না এ সরকার গরিবেরও সরকার। গরিব মানুষের জন্যে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, দুগ্ধ ভাতা এমনকি অনগ্রসর বেদে জনগোষ্ঠী যাদেরকে নিয়ে কেউ ভাবেনি, প্রধানমন্ত্রী তাদের নিয়ে কথা বলছেন।
জাতীয় সমাজসেবা দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন, রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক।
এ সময় হামিদুল হক আরো বলেন, আমাদের হিজড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের স্বাভাবিক স্রোতে ফিরিয়ে আনার কাজ করা হচ্ছে। সমাজে অনাকাক্সিক্ষত কিছু সন্তানের আবির্ভাব হয়। যেখানে সন্তানের কোনো দোষ ত্রুটি থাকে না, দোষত্রুটি থাকে তাদের তথাকথিত মা-বাবাদের। সেই সন্তানদের মানুষ করার জন্যে সরকার ছোটমণি নিবাস তৈরি করে দিয়েছে। গরিব রোগিদের চিকিৎসা সহায়তা করা হচ্ছে সরকারিভাবে। ভিক্ষুক পুনর্বাসনের জন্যে সরকার আমাদের টাকা দিচ্ছে। আমাদের সরকারি কর্মকর্তারা ১ দিনের বেতন দিয়েছেন। আমরা এখানে ৬৩ লক্ষ টাকা ভিক্ষুক পুনর্বাসনে দিয়েছি, সমাজসেবা অধিদপ্তর দিয়েছে ১০ লক্ষ টাকা। আমরা ভিক্ষুক পুনর্বাসনে কাজ করেছি।
জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, আমাদের কৃতজ্ঞতা বলতে কিছু নাই। আমদের জাতির পিতা যিনি তার ৫৫ বছরের জীবনের সাড়ে ১২ বছর বাঙালির জন্যে জেল খেটেছেন। যিনি তার নিজের কথা, পরিবারের কথা চিন্তা করেন নি। যিনি মুক্তিযুদ্ধের পরে বাঙালিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্যে বিদেশ থেকে ধার-দেনা করে এনে খাইয়েছিলেন। আমরা তাকেসহ তার পরিবারের ১৭ জনকে হত্যা করেছি। আবার তার বিচার যেন না করতে পারি তার ব্যবস্থাও করেছি। আমরা শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানসহ জাতীয় ৪ নেতাকে হত্যা করেছি। পাকিস্তান, আমেরিকা, চিন তাদেরকে মারতে পারেনি কিন্তু আমরা বাঙালিরা তাদের জেলাখানার ভেতর নির্মমভাবে হত্যা করেছি। আমরা কেমন মানুষ! আমাদের কৃতজ্ঞতা বলতে কিছু নাই।
জেলা প্রশাসন, বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয় এবং জেলা সমাজসেবা কার্যালয় যৌথভাবে জাতীয় সমাজসেবা দিবস পালন উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানিকতা পালন করে। দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৯ টায় র‌্যালি এবং সাড়ে ১০ টার দিকে শিল্পকলা একাডেমিতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয় রাজশাহীর পরিচালক (উপ-সচিব)একেএম সরোয়ার জাহান এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাখেন, রাজশাহী পুলিশ সুপার বিপিএম পিপিএম শহিদুল্লাহ, সমাজসেবী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহীন আক্তার রেনী। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক হাসিনা মমতাজ, সহকারী পরিচালক ড. আব্দুল্লা আল ফিরোজসহ অধিদপ্তরের বর্তমান ও প্রাক্তন কর্মকতা ও কর্মচারীবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে ক্যান্সার, কিডনি, লিভারসিরোসিস, স্ট্রোক প্যারালাইজড ও জন্মগত হৃদরোগীদের এককালীন অনুদানের চেক ও হতদরিদ্রদের মাঝে শীতবন্ত্র বিতরণ করা হয়। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ