অনাহার ও অপুষ্টিতে ভারতের গোশালায় পাঁচ মাসে মৃত্যু ১৫২টি গরুর

আপডেট: এপ্রিল ৯, ২০১৭, ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এক দিকে গো রক্ষার নামে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তা-ব চালাচ্ছে তথাকথিত গোরক্ষকের দল, অন্য দিকে দেশের অন্যতম বড় গোশালাতে ‘অবহেলা’র কারণে মারা পড়ছে গরু!
১২৮ বছরের পুরনো কানপুর গোশালা দেশের অন্যতম বৃহৎ ও প্রতিপত্তিশালী। প্রায় ৫৪০টি গরু রয়েছে এখানে। রাস্তা থেকে অসুস্থ গরুদের উদ্ধার করে এখানে নিয়ে এসে দেখাশোনা করা হয়। কিন্তু এই গোশালার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধেই অবহেলার অভিযোগ উঠেছে। সূত্রের খবর, এই গোশালাতেই গত ৫ মাসে ১৫২টি গরুর মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে গত সপ্তাহে অনাহারে মৃত্যু হয়েছে ৪টি গরুর। গরুদের দেখভাল করার জন্য যে গোশালা, সেখানেই দেখাশোনার অভাবে গরুদের মৃত্যুতে স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
গরুদের দেখভালের জন্য গঠন করা হয়েছে কানপুর সোসাইটি। অথচ সেই সোসাইটির বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠেছে গরুদের অবহেলা করার। সোসাইটির এক কর্মকর্তা জানান, গরুদের দেখাশোনার জন্য প্রচুর অর্থ আসে এই সোসাইটিতে। অভিযোগ, এত টাকা আসা সত্ত্বেও গরুদের ঠিক মতো খেতে দেয়া হয় না। প্রশ্ন উঠেছে তা হলে এই টাকা যায় কোথায়? ওই কর্মকর্তা জানান, একটি গরুর দিনে ৮ কেজি খড় ও ১৫ কেজি ঘাস লাগে। অভিযোগ, পর্যাপ্ত খাবার থাকা সত্ত্বেও গরুদের পরিমাণ মতো খাবার দেয়া হয় না। ফলে অপুষ্টিতে অসুস্থ হয়ে গরুগুলো মারা যাচ্ছে। গোশালার এক চিকিৎসকও জানান, অপুষ্টি ও ডিহাইড্রেশনের কারণেই গরুর মৃত্যু হচ্ছে।
তবে এই অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন সোসাইটির জেনারেল সেক্রেটারি শ্যামজি অরোরা। তিনি জানান, প্রতি দিনই চিকিৎসক আসেন গরুগুলোকে দেখতে। তা ছাড়া গরু দেখাশোনার জন্য আট জনের একটি বিশেষ দল রয়েছে। এত কিছু সত্ত্বেও গরুর প্রতি অবহেলার যুক্তিকে শ্যামজি খারিজ করে দিয়েছেন। তবে এতগুলো গরুর মৃত্যু কী ভাবে হল এবং ঠিক মতো তাদের খাবার দেয়া হত কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।- আনন্দবাজার পত্রিকা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ