অপহরণের পর উদ্ধার : পরীক্ষা দেয়া হলো না জয়নবের

আপডেট: এপ্রিল ৯, ২০১৭, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


অপহরণের শিকার হয়ে জয়নব খাতুন (২১) নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেন নি। জয়নবের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নয়াগোলা মহল্লায়। তার বাবার নাম সাইফুল ইসলাম। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ লাইন্স স্কুলের সহকারি শিক্ষক।
গতকাল শনিবার পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার পথে অচেনা দুই নারী জয়নবকে চেতনানাশক খাবার খাইয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। দুপুরে রাজশাহী শহরের গৌরহাঙা এলাকায় তার জ্ঞান ফিরলে সে অটোরিকশা থেকে নেমে দৌড় দেয়। এরপর সে আবার অচেতন হয়ে পড়ে। পরে পুলিশ তাকে নিয়ে গিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করে।
চিকিৎসার পর বিকেলে জ্ঞান ফিরলে জয়নব খাতুন জানায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ থেকে চলতি এইচএসসি পরীক্ষায় তিনি অংশ নিয়েছেন। সকালে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার জন্য অটোরিকশায় ওঠেন। ওই অটোরিকশায় আগে থেকেই বোরখা পরে দুইজন অচেনা নারী বসেছিলেন। তারা জয়নবকে কৌশলে চেতনাশক খাবার খাওয়ান। এরপর জয়নব অচেতন হয়ে পড়লে তাকে রাজশাহী নিয়ে আসা হয়।
কান্নায় ভেঙে পড়ে জয়নব বলেন, ‘আমার পরীক্ষার এখন কী হবে! আমি পরীক্ষা দিতে পারলাম না। আমি কী দোষ করেছিলাম? ওরা আমার ভবিষ্যৎ নষ্ট করে দিল। আমি ওদের শাস্তি চাই।’ তবে কী কারণে তাকে অপহরণ করা হচ্ছিল সে ব্যাপারে কিছু জানাতে পারেন নি জয়নব।
নগরীর বোয়ালিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান বলেন, অটোরিকশায় করে মেয়েটিকে অচেতন অবস্থায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে অপহরণ করে আনা হয়েছিল। রাজশাহী এসে জ্ঞান ফিরলে তিনি অটোরিকশা থেকে দৌড় দেন। এরপর তিনি আবার জ্ঞান হারান। পরে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেন। পুলিশ গিয়ে জয়নবকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।
ওসি জানান, চিকিৎসার পর সুস্থ হলে বিকেলে মেয়েটির বাবা তাকে নিয়ে গেছেন। তবে তারা থানায় কোনো অভিযোগ করে যাননি। তারা হয়তো চাঁপাইনবাবগঞ্জে অভিযোগ করবেন। বোয়ালিয়া থানায় অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ