অবরুদ্ধ আ’লীগ নেতা সান্টুকে উদ্ধার করলো পুলিশ || বিক্ষোভ-মিছিল : শাস্তির দাবি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বাগমারা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম সান্টুর বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিলে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মরিা-সোনার দেশ

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম সান্টুকে অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে সান্টু ও তার সহযোগীদের অবরুদ্ধ করেন বিক্ষুব্ধরা। এদিকে চেয়ারম্যানের শাস্তির দাবিতে গতকাল শুক্রবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বড়বিহানালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ।
বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে নিজ এলাকা খালিশপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এসময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা সড়ক অবরোধ ও আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। সান্টুর অনুসারীদের মারপিটে আহত আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রশিদকে (৪০) বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।
এলাকাবাসি সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলা চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু তার নিজ এলাকা খালিশপুর বাজারে নেতাকর্মীদের নিয়ে অবস্থান করছিলেন। এসময় একই এলাকার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রশিদকে তার অনুসারীরা দেখতে পেয়ে তাকে চেয়ারম্যানের কাছে ধরে আনেন। পরে চেয়ারম্যান সান্টুসহ তার অনুসারীরা রশিদকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করেন।
এসময় স্থানীয় নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার অনুসারীদের ধাওয়া করেন। ধাওয়া খেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার অনুসারীরা খালিশপুর বাজার সংলগ্ন বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রয় নেন। এরপর বিক্ষুব্ধরা ওই বৃদ্ধাশ্রম ভবন ঘেরাও করে রাখে। পরে নেতাকর্মীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করতে থাকে। পরে রাত ১২টায় পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে অবরুদ্ধ সান্টু ও তার সহযোগীদের উদ্ধার করে।
এ ব্যাপারে জানার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান সান্টুর মোবাইল ফোনে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য পাওয়া সম্ভব হয় নি। তবে এ ব্যাপারে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাছিম আহমেদ জানান, ঘটনা জানার পর পুলিশ পাঠিয়ে অবরুদ্ধ চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করা হয়েছে।
তিনি জানান, স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে মারপিট করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা তাকে অবরুদ্ধ করেন। আহত আবদুর রশিদ চিকিৎসাধীন আছেন। তার নিকটাত্মীয়রা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। মামলা হলে আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এদিকে গতকাল শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় লোকজন ও আওয়ামী লীগ নেতা সান্টুর বিচার ও শাস্তির দাবিতে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করেছে। এলাকার দেড় হাজার নারী ও পুরুষ সমাবেশে অংশ নেয়। তারা সান্টুর শাস্তির দাবিতে প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীসহ কেন্দ্রিয় নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতের ঘোষণা দিয়েছে।
সমাবেশে বক্তব্য দেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা সোলাইমান আলী হিরু, উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিন, যুবলীগের নেতা রেজাউল করিম রেজা, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আব্দুল মতিন, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কবরী ইয়াসমিন, ছাত্রলীগের উপজেলার সভাপতি আব্দুল মালেক নয়ন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা, আওয়ামী লীগ নেতা আজিজার রহমান, ইউপি সদস্য সিদ্দিকুর রহমান রিবল, মোজাহার আলী প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ